আবারও জার্মান চ্যান্সেলর ম্যার্কেল

বুথ ফেরত জরিপে পাওয়া আভাসই শেষমেশ সত্য হলো। চতুর্থ বারের মতো জার্মানির চ্যান্সেলর নির্বাচিত হলেন আঙ্গেলা ম্যার্কেলই।

বিবিসি অনলাইনের খবর বলছে, ৩২ দশমিক ৯ শতাংশ ভোট পেয়েছে ম্যার্কেলের দল। আর তার জোটের বর্তমান অংশীদার সোশ্যাল ডেমোক্রেটিক পার্টি এসপিডি ২০ দশমিক ৮ শতাংশ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে।

এদিকে, কট্টর ডানপন্থি দল অল্টারনেটিভ ফর জার্মানি-এএফডি পেয়েছে ১৩ দশমিক ১ শতাংশ ভোট, ম্যার্কেল শিবিরের সবচেয়ে সম্ভাব্য সহযোগী উদারপন্থি এফডিপি পেয়েছে ১০ দশমিক ৫ শতাংশ ভোট, পরিবেশবাদী গ্রিন পার্টি পেয়েছে ৮ দশমিক ৯ শতাংশ ভোট, আর বাম দল পেয়েছে ৮ দশমিক ৯ শতাংশ ভোট।

বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, প্রায় ৭০ বছরের মধ্যে নির্বাচনে সবচেয়ে খারাপ ফল করেছে ম্যার্কেলের দল খ্রিস্টান ডেমোক্র্যাটিক ইউনিয়ন (সিডিইউ/সিএসইউ)।

জয় পাওয়ার পর সমর্থকদের উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে আঙ্গেলা ম্যার্কেল জানান, তিনি ‘আরও ভালো ফল করার আশা’ করেছিলেন। এএফডি পার্টির উত্থানে জনগণের ‘ভয়, উদ্বেগে’র কথা শুনবেন বলে জানান তিনি।

এদিকে, সিএনএন তাদের খবরে বলছে, আঙ্গেলা ম্যার্কেলের বিজয়ের পর কট্টর ডানপন্থীরা বিক্ষোভ করেছেন। এসময় ব্যঙ্গ করে ‘শরণার্থীদের স্বাগত জানানোর প্ল্যাকার্ডও বহন করে’ বিক্ষোভকারীরা, যারা ইউরোপজুড়ে অভিবাসী সংকটের সময় ম্যার্কেলের জার্মানির দরজা খুলে দেওয়ার নীতির বিরোধিতা করেছিল।

এর আগে বুথ ফেরত জরিপে দেখা যায়, সিডিইউ পেয়েছে ৩২ দশমিক ৯ শতাংশ ভোট, এসপিডি ২০ দশমিক ২ শতাংশ, বামপন্থীরা ৯ শতাংশ, গ্রিন পার্টি ৯ দশমিক ৩ শতাংশ, এফডিপি ১০ দশমিক ৫ শতাংশ, এএফডি ১৩ দশমিক ৩ শতাংশ এবং অন্যান্য ৪ দশমিক ৮ শতাংশ।

২০০৫ সালের ফেডারেল নির্বাচনে প্রথমবারের মতো চ্যান্সেলর নির্বাচিত হন আঙ্গেলা ম্যার্কেল। সেই নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি ছিলো ৭৭ দশমিক ৭ শতাংশ। কিন্তু হঠাৎই এর পরের নির্বাচনগুলোতে কমে যায় উপস্থিতির হার। ২০০৯ সালের ফেডারেল নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি ছিলো ৭০ দশমিক ৮ শতাংশ। ২০১৩ সালে তা কিছুটা বেড়ে দাঁড়ায় ৭১ দশমিক ৫ শতাংশে।

বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *