যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের মূল ভূখণ্ডে হারিকেন ইরমা

ক্যারিবীয় অঞ্চলের দ্বীপগুলোতে তাণ্ডব চালানোর পর যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের মূল ভূখণ্ডে আঘাত হেনেছে হারিকেন ইরমা।
সোমবার ০২:০০ জিএমটিতে যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল হারিকেন সেন্টার (এনএইচসি) বলেছে, “হারিকেনটির কারণে ফ্লোরিডার অধিকাংশ এলাকায় ব্যাপক ধ্বংসাত্মক ঝড় বয়ে যাচ্ছে।”

বিবিসি জানিয়েছে, এর আগে ফ্লোরিডার দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর নেপলসের দক্ষিণ দিক দিয়ে ইরমার কেন্দ্রটি মূল ভূখণ্ডে আঘাত হানে। এ সময় উপকূলে ১৫ ফুট উঁচু জলোচ্ছ্বাস আঘাত হানতে পারে বলে সতর্কতা জারি করা হয়েছিল।
উপকূলের মার্কো দ্বীপে আঘাত হানার মধ্য দিয়ে ফ্লোরিডায় প্রবেশ করতে শুরু করে ইরমা। ওই সময় হারিকেনটির বাতাসের বেগ ছিল ঘন্টায় ১৬৯ কিলোমিটার, কিন্তু এরপর থেকে শক্তি হারিয়ে হারিকেনটি তিন মাত্রার ঘূর্ণিঝড় থেকে দুই মাত্রার ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়।

ঝড়টি এখন শক্তি হারাচ্ছে, কিন্তু সোমবার সকাল পর্যন্ত এটি হারিকেন হিসেবে থেকে যাবে বলে ধারণা করেছে এনএইচসি।

এনএইচসি বলেছে, “সোমবার সকালে ইরমা ফ্লোরিডা উপদ্বীপের পশ্চিম উপকূলের কাছ দিয়ে বা ওপর দিয়ে এগিয়ে যেতে পারে, এরপর ফ্লোরিডার উত্তরাঞ্চল দিয়ে দেশের ভিতরে প্রবেশ করে সোমবার বিকাল নাগাদ দক্ষিণ-পশ্চিম জর্জিয়া পর্যন্ত পৌঁছতে পারে।”
ইরমার কারণে ফ্লোরিডার ৩৪ লাখেরও বেশি বাড়ি বিদ্যুৎহীন অবস্থায় আছে এবং মিয়ামি শহরের কয়েকটি অংশ পানিতে ডুবে গেছে।

ইরমা উত্তরদিকে এগিয়ে যাওয়ার মুখে ঝড়-সম্পর্কিত কারণে এ পর্যন্ত তিনজনের মৃত্যু হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

ইরমার তাণ্ডবে এরইমধ্যে ক্যারিবীয় অঞ্চলের কয়েকটি অংশ ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে এবং ২৮ জন নিহত হয়েছেন। ফ্লোরিডার ৬৩ লাখ বাসিন্দাকে ঘরবাড়ি ছেড়ে নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যেতে বলা হয়েছে।
যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বড় ধরনের দুর্যোগ ঘোষণা করার অনুমোদন দিয়ে ফ্লোরিডার জন্য জরুরি ত্রাণ সহায়তার ঘোষণা দিয়েছেন।

হারিকেনটিকে ‘বড় ধরনের দানব’ আখ্যায়িত করে ‘খুব দ্রুত’ ফ্লোরিডার ক্ষয়ক্ষতি দেখতে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি।

গত এক শতাব্দীর মধ্যে আটলান্টিক মহাসাগরে সৃষ্ট সবচেয়ে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ইরমা শুরুতে পাঁচ মাত্রার ঘূর্ণিঝড় হিসেবে ক্যারিবীয় অঞ্চলের বিভিন্ন দ্বীপে তাণ্ডব চালিয়ে শুক্রবার কিউবায় আঘাত হানে, এরপর ‍কিছুটা শক্তি হারিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা উপকূলের দিকে ধেয়ে যায়।

বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *