হাইড্রোজেন বোমার পরীক্ষার সফলঃ দাবি উত্তর কোরিয়ার

উত্তর কোরিয়া আজ রোববার তাদের ষষ্ঠ পরমাণু পরীক্ষা চালিয়েছে। জাপান বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। দেশটির চালানো পরীক্ষাগুলোর মধ্যে এটি সবচেয়ে শক্তিশালী পরমাণু অস্ত্রের পরীক্ষা বলে ধারণা করা হচ্ছে।

উত্তর কোরিয়া একটি হাইড্রোজেন বোমার উন্নতি ঘটিয়েছে বলে আজ পিয়ংইয়ং দাবি করেছে। এর কয়েক ঘণ্টা পরই এই পরীক্ষা চালানো হলো।

তবে উত্তর কোরিয়া দাবি করেছে, আজ তারা হাইড্রোজেন বোমারই পরীক্ষা চালিয়েছে। হাইড্রোজেন বোমা পরমাণু বোমার চেয়ে কয়েক গুণ শক্তিশালী। বিশ্লেষকেরা বলছেন, উত্তর কোরিয়ার এ দাবি সতর্কতার সঙ্গে বিবেচনা করা উচিত।

জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী তারা কোনো সাংবাদিকদের বলেন, ‘আবহাওয়া সংস্থার দেওয়া তথ্যসহ নানা তথ্য–উপাত্ত পরীক্ষা–নিরীক্ষা করার পর সরকার নিশ্চিত করছে যে উত্তর কোরিয়া পরমাণু পরীক্ষা চালিয়েছে।’ তিনি বলেন, এ ঘটনায় জাপান চীনের বেইজিংয়ে অবস্থিত উত্তর কোরিয়ার দূতাবাসের কাছে প্রতিবাদ জানিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে বলেছেন, উত্তর কোরিয়ার পিয়ংইয়ংয়ের ষষ্ঠ পরমাণু পরীক্ষা ‘পুরোপুরি অগ্রহণযোগ্য’।

দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা ইয়োনহ্যাপের উদ্ধৃতি দিয়ে বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, উত্তর কোরিয়ার পরমাণু পরীক্ষার কেন্দ্রস্থল ও আশপাশে আজ কৃত্রিম ভূমিকম্প হয়েছে, যা দেশটির ষষ্ঠতম পরমাণু পরীক্ষা বলে ধারণা করা হচ্ছে। পিয়ংইয়ংয়ের পঞ্চম পরমাণু পরীক্ষার সময় যে মাত্রায় ভূমিকম্প হয়েছিল, তার চেয়ে এটি ৯ দশমিক ৮ গুণ শক্তিশালী।

দক্ষিণ কোরিয়ার আবহাওয়া প্রশাসনের এক কর্মকর্তার উদ্ধৃতি দিয়ে ইয়োনহ্যাপ জানায়, ‘গত বছরের সেপ্টেম্বরে চালানো পঞ্চম পরমাণু পরীক্ষার চেয়ে এটা কেবল ৮ দশমিক ৮ গুণ শক্তিশালীই নয়, বরং এটি উত্তর কোরিয়া এ পর্যন্ত যত পরীক্ষা চালিয়েছে, তার মধ্যে সবচেয়ে শক্তিশালী।’

দক্ষিণ কোরিয়ার কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, উত্তর কোরিয়ার কিলজু অঞ্চলে ভূকম্পনের সৃষ্টি হয়। পংগিরি পরমাণু পরীক্ষার স্থাপনাটি ওই অঞ্চলেই অবস্থিত।

এ ঘটনার পরপরই দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জে তাঁর জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের জরুরি বৈঠক আহ্বান করেন।

মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভূপৃষ্ঠের ১০ কিলোমিটার গভীরে ৬ দশমিক ৩ মাত্রার ভূকম্পন সৃষ্টি হয়েছে। এটা সম্ভবত উত্তর কোরিয়ার চালানো পরীক্ষাগুলোর মধ্যে সবচেয়ে শক্তিশালী।

এর আগে উত্তর কোরিয়া যেখানে পরমাণু পরীক্ষা চালিয়েছিল, সেখানেও কম্পন শনাক্ত করেছিলেন ভূকম্পনবিদেরা।

বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *