সিনহা নিজ যোগ্যতায় প্রধান বিচারপতি হয়েছেনঃ হিন্দু মহাজোট

ষোড়শ সংশোধনীর রায়ে কোনোভাবেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে খাটো করা হয়নি। প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা নিজ মেধা ও যোগ্যতাবলেই প্রধান বিচারপতি হয়েছেন। কারো দয়াদাক্ষিণ্যে নয়। তিনি এ দেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের একজন হওয়ার করণেই তাঁকে এভাবে হেয় করা হচ্ছে।

গতকাল সোমবার সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক সংবাদ সম্মেলনে ‘বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট’-এর নেতারা এসব কথা বলেছেন। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সংগঠনের মহাসচিব গোবিন্দ প্রমাণিক।
গোবিন্দ বলেন, ‘যাঁরা প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করেছেন, বিচার বিভাগের ওপর মানুষের আস্থা ও সম্মান পুনঃপ্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে তাঁরা নিজ উদ্যোগে স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে আদালতের কাছে, দেশবাসীর কাছে ক্ষমা চাইবেন। একই সঙ্গে পরিষ্কার ভাষায় বলতে চাই, আগামী সংসদ নির্বাচনের আগেই সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিত্ব সুনিশ্চিত করতে জাতীয় সংসদে ৫০টি আসন সংরক্ষণ ও পৃথক নির্বাচনব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করতে হবে। ’

এ ছাড়া সংখ্যালঘুবিষয়ক মন্ত্রণালয়, সব সম্প্রদায়ের সম-অধিকার ও সমমর্যাদা প্রতিষ্ঠা করতে দুর্গাপূজায় তিন দিনের সরকারি ছুটি দেওয়ার দাবি জানানো হয়। আগামী নির্বাচনে হিন্দু সম্প্রদায় আর কারো ভোটব্যাংক হয়ে থাকবে না বলেও লিখিত বক্তব্যে উল্লেখ করা হয়।

গোবিন্দ প্রমাণিক আরো বলেন, ‘সরকারের মন্ত্রী থেকে সরকারি দলের বড় বড় নেতানেত্রী যেভাবে, যে ভাষায় প্রধান বিচারপতিকে আক্রমণ করে কথা বলছেন, তা ইতিহাসে বিরল। দেশের সর্বোচ্চ আদালতকে নিয়ে এর আগে আমরা এমন কথা শুনিনি। ’
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন হিন্দু মহাজোটের প্রেসিডিয়াম মেম্বার রবীন্দ্রনাথ দেবনাথ, গাজীপুর জেলা সেক্রেটারি রঘুনাথ বর্মণ ও প্রদীপ কুমার পাল।

বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *