ভিক্ষু হত্যাকাণ্ডে দেশে বিদেশে প্রতিবাদ অব্যাহতঃ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্য প্রত্যাহারের দাবী

আইপিনিউজ ডেস্কঃ বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়িতে ভিক্ষু হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে ১৫ই মে দেশের বিভিন্ন জায়গায় মানববন্ধনসহ মিছিল ও বিক্ষোভ সমাবেশ হয়েছে।
রোববার বিকেলে ভিক্ষু হত্যার প্রতিবাদে বান্দরবন জেলা প্রেসক্লাবের সামনে বৌদ্ধ ভিক্ষু পরিষদ এবং বৌদ্ধ ভিক্ষু ইয়ং অ্যাসোসিয়েশনের ব্যানারে মানববন্ধন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়।
মানববন্ধনে ক্ষোভ প্রকাশ করে ধর্মীয় গুরু অধ্যক্ষ মহাথের উচহ্লা ভান্তে বলেন, ‘স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কীভাবে বললেন, ভিক্ষু হত্যায় স্বজনরা জড়িত? হয়তো তিনি দিব্যজ্ঞানসম্পন্ন ব্যক্তি, নয়তো স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর মাথা খারাপ। তিনি এ কথা কেন বললেন স্বজনরা জড়িত? দেশের একজন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, তাঁর প্রতিটি কথা সারা বিশ্ব শোনে। তাই আমরা চাই, মুখ ফসকে যেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কোনো কথা না বলেন। আমরা চাই তাঁর প্রতিটি প্রদক্ষেপ হবে লোহার মতো শক্ত। আর প্রতিটি আইনি ব্যবস্থায় বিশ্ববাসী যেন বুঝতে পারে বাংলাদেশে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা শান্তিতে আছে।’

এদিকে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সামনে ভিক্ষু হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে আয়োজিত মানববন্ধনে বাংলাদেশ সংঘরাজ ভিক্ষু মহাসভার মহাসচিব ভদন্ত এস লোকজিৎ থের হুমকি দিয়ে বলেন, “স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দেওয়া বক্তব্য আগামী বৈশাখী পূর্ণিমার (২১ মে) আগেই প্রত্যাহার না করলে এক দফার আন্দোলন শুরু করব।” । বিপুলসংখ্যক বৌদ্ধ ভিক্ষু ছাড়াও বৌদ্ধ ছাত্র ও তরুণদের বিভিন্ন সংগঠনের সদস্যরা ব্যানার নিয়ে মানববন্ধনে যোগ দেন।
আবার নিউ ইয়র্কে বান্দরবানে বৌদ্ধ ভিক্ষু হত্যার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে নিউ ইয়র্ক প্রবাসী বৌদ্ধ সম্প্রদায়। গত শনিবার নিউ ইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসে এক প্রতিবাদ সমাবেশে তারা হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবি জানায়।
প্রতিবাদ সমাবেশে সত্যানন্দ ভিক্ষু বলেন, ‘বৌদ্ধ ধর্ম শান্তির ধর্ম, অহিংসার ধর্ম। তাই একজন বৌদ্ধ ভিক্ষুকে হত্যার নিন্দা জানানোর ভাষা আমাদের জানা নেই। আমরা এই হত্যাকাণ্ডের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে বিচারের আওতায় আনার জন্য বাংলাদেশ সরকারের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি।’
13227891_1183522061660126_1922431187_n
বৌদ্ধ ভিক্ষুকে হত্যার প্রতিবাদে ১৫মে রবিবার বিকেল ৪টায় নাইক্ষ্যংছড়ি সদরে চাক তরুণ প্রজন্ম সংঘের ব্যানারে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। এছাড়াও বান্দরবন জেলার লামা উপজেলাসহ বিভিন্ন স্থানে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা।
হত্যার ঘটনায় ভিক্ষু মং শু ইউয়ের ছোট ছেলে অংছা থোয়াই চাক শনিবার রাতে অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিদের আসামি করে নাইক্ষ্যংছড়ি থানায় মামলা করেছেন। হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে পুলিশ তিনজনকে আটক করেছে। তারা হলো—ছা মং চাক (৩২), জিয়াউল হক (২৮) ও আবদুর রহিম (২৯)। পুলিশ বলছে, শনিবার রাতে পৃথক অভিযানে তাদের আটক করা হয়। তিনজনই মিয়ানমারের নাগরিক। নাইক্ষ্যংছড়ি থানার ওসি আবুল খায়ের গতকাল রবিবার জানান, আটক তিনজনকে উপজেলার বাইশারি তদন্ত ফাঁড়িতে রাখা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। তবে তারা এ ঘটনায় সুনির্দিষ্টভাবে জড়িত কি না তা স্পষ্ট করে বলা যাচ্ছে না। সন্দেহভাজন অন্যদের আটক করতে অভিযান চলছে।

বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *