জাককানই বিশ্ববিদ্যালয়ের আদিবাসী শিক্ষার্থীরা স্বপ্ন ছুঁতে মধুপুরে

লিজা নকরেক ; মধুপুরঃ জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ১১ তম ব্যাচের আদিবাসী ছাত্র-ছাত্রীরা jumang.kho rimna (স্বপ্ন ছুঁতে) গত ১২ই মে মধুপুরের একাধিক গ্রামে সফর করেছে। সেই সফরের অংশ হিসেবে মধুপুরের জয়নাগাছা গ্রামের মৃত্তিকা গ্রন্থকেন্দ্র পরিদর্শন ও মৃত্তিকা সংস্কৃতি কেন্দ্র’র বন্ধুদের সাথে সম্প্রীতি আড্ডায় অংশ নিয়েছে।

গত ১২ মে, ২০১৭ তারিখ রোজ শুক্রবার বেলা ২ টায় জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ১১ তম ব্যাচের আদিবাসী ছাত্র-ছাত্রীদের ১২ জনের একটি প্রতিনিধি দল মধুপুরের জয়নাগাছা গ্রামের মৃত্তিকা গ্রন্থকেন্দ্র পরিদর্শন ও মৃত্তিকা সংস্কৃতি কেন্দ্র’র বন্ধুদের সাথে এক সম্প্রীতি আড্ডায় মিলিত হন।
মৃত্তিকা সংস্কৃতি কেন্দ্র’র বন্ধুরা অভ্যর্থণা সংগীতের মাধ্যমে আগত অতিথিদের মৃত্তিকা গ্রন্থকেন্দ্রে স্বাগত জানান। উক্ত পরিদর্শন ও সম্প্রীতি আড্ডায় উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগি অধ্যাপক জোবাইদা নাসরিন কনা, জয়নাগাছা উপপ্যারিস প্রধান মি. রবেন নকরেক, জাতিতাত্ত্বিক লোকায়িত জ্ঞান ও সংস্কৃতি পাঠকেন্দ্র- মৃত্তিকা’র কেন্দ্রীয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি পরাগ রিছিল, সচিব জুয়েল বিন জহির, সংস্কৃতি কেন্দ্র’র প্রধান সমন্বয়ক যাদু রিছিল প্রমুখ।
প্রায় তিন ঘন্টা ব্যাপী এই সম্প্রীতি আড্ডায় আগত আদিবাসী ছাত্র-ছাত্রীদের প্রতিনিধি দলের সদস্যরা মৃত্তিকা সংস্কৃতি কেন্দ্র’র শিশু-কিশোরদের নাচ-গান-খেলাধুলা-কাগজ দিয়ে ফুল-পাখি বানানো ইত্যাদির মাধ্যমে মাতিয়ে রাখেন। আড্ডা শেষে গ্রন্থকেন্দ্র চত্বরের মুক্তমঞ্চে সাংস্কৃতিক পরিবেশনায় অংশ নেয় মৃত্তিকা সংস্কৃতি কেন্দ্র’র সদস্যরা। সাংস্কৃতিক পরিবেশনা শেষে আগত প্রতিনিধি দলের সদস্যদের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা স্মারক হিসেবে মৃত্তিকা গ্রন্থকেন্দ্রর জন্য কিছু বই তুলে দেন মৃত্তিকা কেন্দ্রীয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি পরাগ রিছিলের হাতে।
এর আগে সকাল ১১ টার দিকে মৃত্তিকা সংস্কৃতি কেন্দ্র’র শিশু-কিশোরদের যৌথতার চর্চায় উদবুদ্ধ করার লক্ষ্যে থা.মান্দি রোপন কর্মসূচী পালন করা হয়। জাতিতাত্ত্বিক লোকায়ত জ্ঞান ও সংস্কৃতি পাঠকেন্দ্র-মৃত্তিকার কেন্দ্রীয় পরিচালনা পর্ষদের সচিক জুয়েল বিন জহিরের উপস্থিতিতে সংস্কৃতি কেন্দ্র’র প্রায় অর্ধশতাধিক শিশু-কিশোরদের প্রত্যেকের বাড়িতে একটি করে থা.মান্দি’র বীজ(কন্দ)রোপন করা হয়।

বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *