রাষ্ট্রের কোন ধর্ম নেইঃ প্রধান বিচারপতি

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা বলেছেন, ‘ধর্ম যার যার, রাষ্ট্র সবার। রাষ্ট্রের কোনো ধর্ম নেই এবং থাকতে পারে না। ধর্ম মানবতার। ’
গতকাল বুধবার বুদ্ধপূর্ণিমা উপলক্ষে রাজধানীর সবুজবাগে ধর্মরাজিক বৌদ্ধ মহাবিহারে ‘বৌদ্ধধর্মের আলোকে বিশ্বশান্তি’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধান বিচারপতি এ সব কথা বলেন।
প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘সকল মানুষের রক্তই লাল, তাহলে কেন ধর্ম নিয়ে এত বিভেদ, হানাহানি? আজকে কেন ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি করি? প্রতিটি ধর্মই শান্তির কথা বলে। আমি সবাইকে আহ্বান জানাই, আপনারা যার যার ধর্মের মর্মবাণী প্রচার করুন। যারা বিপথে গেছে তাদেরকে বোঝান। ’
প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘বাংলাদেশ একটি ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র। তা বোঝা যায় আজকে সরকারি ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। একইভাবে দুর্গাপূজায়ও ছুটি ঘোষণা করা হয়। আমাদের অনুষ্ঠানে যেমন মুসলমানসহ সব ধর্মের মানুষ আসে, আমরাও তাদের ধর্মীয় অনুষ্ঠানে যাই। ধর্মকে আমরা কোনো সীমার মধ্যে রাখতে চাই না। ধর্ম মানুষের জন্য। রাষ্ট্রের কোনো ধর্ম থাকতে পারে না। ’
প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘পৃথিবীর সব ধর্মের ক্ষেত্রেই একটি সুবিধাবাদী শ্রেণি, স্বার্থান্বেষী মহল তাদের নিজেদের মতো করে ধর্মের ব্যাখ্যা দিয়ে যাচ্ছে, ধর্মের অপব্যাখ্যা করছে। তাদের কারণেই পৃথিবীতে এত সংঘাত-হানাহানি। এর সুবিধা নিয়ে সুকৌশলে কায়েমি শাসক শ্রেণি লাভবান হচ্ছে। ’
প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘আমরা প্রতিটি ধর্মের মূল ধর্মগ্রন্থ সূক্ষ্মভাবে পর্যালোচনা করলে দেখতে পাই, এতে মানুষের কল্যাণ, জীবনের সমস্যা, অন্তর্দ্বন্দ্ব, হিংসা, বিদ্বেষ পরিহার করে চলার কথা বলা হয়েছে। অথচ আমরা যদি সারা পৃথিবীর বর্তমান রাজনৈতিক অবস্থার দিকে আলোকপাত করি তাহলে সব জায়গাতে যে দ্বন্দ্ব, যুদ্ধ, বিগ্রহ এবং ধ্বংসযজ্ঞ দেখতে পাই তার প্রায় প্রতিটির পেছনেই রয়েছে ধর্মীয় কারণ। ’
প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘আমার মনে হয় বিভিন্ন ধর্মীয় যে মতবাদ সেগুলো বিজ্ঞানের পরিপন্থী। বাহ্যিকভাবে দেখলে বিভিন্ন মতবাদের মধ্যে কিছুটা জাদুবিদ্যার সংমিশ্রণ, অতিপ্রাকৃত বিশ্বাস, ছিদ্রান্বেষী প্রবণতা উপলব্ধি হয়। এটা সত্য যে, ধর্ম বেশির ভাগ মানুষকেই আকৃষ্ট করেছে, গুটিকয়েক মানুষ ছাড়া। পৃথিবীর প্রায় সব মানুষই ধর্মীয় মতবাদের প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করেছে। ধর্মের ওপর ভিত্তি করেই পৃথিবীতে অনেক মহান ব্যক্তি মানুষের কল্যাণে আত্মনিয়োগ করেছেন। ’ তিনি বলেন, ‘পবিত্র ধর্মগ্রন্থগুলো মানব সমাজকে নৈতিক মূল্যবোধ মেনে চলার নির্দেশনা দিলেও এ মূল্যবোধ আজ প্রায়ই প্রয়োগ করতে দেখা যায় না। ’
বাংলাদেশ বৌদ্ধ কৃষ্টি প্রচার সংঘের সভাপতি শুদ্ধানন্দ মহাথেরর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে রামকৃষ্ণ মঠ ও রামকৃষ্ণ মিশনের অধ্যক্ষ স্বামী ধ্রুবেশানন্দজী মহারাজ, শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রদূত ইয়াসোজা গুনাসেকেরা, ভিয়েতনামের রাষ্ট্রদূত ট্রানভান খোয়া, নটর ডেম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ফাদার বেঞ্জামিন কস্তা, আওয়ামী লীগ নেতা নূহ-উল-আলম লেনিন উপস্থিত ছিলেন।

বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *