জনকন্ঠের সম্পাদক, বার্তা সম্পাদক সহ রিপোর্টার ফিরোজ মান্নার বিরুদ্ধে মামলা করেছি

গতকাল জনকন্ঠের সম্পাদক, বার্তা সম্পাদক সহ রিপোর্টার ফিরোজ মান্নার বিরুদ্ধে কোর্টে মামলা দায়ের করে এলাম। আমি ব্যাক্তিগতভাবে ” ফ্রিডম অব প্রেস” ও ” ফ্রিডম অব স্পিচ ” এ বিশ্বাসী, কিন্তু ফিরোজ মান্না তার ফিচারের মাধ্যমে যেভাবে গৌতম বুদ্ধ, রাজবন বিহার এবং বান্দরবানের স্বর্ন মন্দির সর্ম্পকে রিপোর্ট করেছে তা সংবাদ মাধ্যমের স্বাধীনতার ধারনাকেই কলংকিত করেছে। অবশ্য আমাদের সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে প্রতিবাদের পরে জনকন্ঠের সম্পাদ্ক গত ২৮ এপ্রিল তার পত্রিকায় “কৈফিয়ত ও দুঃখ প্রকাশ” নামে একটি বিবৃতি দিয়েছেন। এতে কেউ কেউ কনফিউসড হতে পারেন। কিন্তু একটু খেয়াল করলেই দেখা যাবে, তার বিবৃতির মধ্যেই ফাঁকি রয়েছে। তিনি তার বিবৃতিতে বলতে চেয়েছেন যে উইকিপিডিয়াকে উদৃত করে গৌতম বুদ্ধ সম্পর্কে প্রকাশিত বক্তব্যে বৌদ্ধ সম্প্রদায় বিশেষভাবে ক্ষুব্ধ কিন্তু দৈনিক জনকন্ঠ উইকিপিডিয়ার বক্তব্যকে কোন সময়ই সমর্থন করেনা এবং পত্রিকা কতৃপক্ষ আলোচ্য প্রতিবেদনের উইকিপিডিয়ার অংশটি সম্পুর্ন প্রত্যাহার করে নিচ্ছে এবং দুঃখ প্রকাশ করছে। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখজনক যে তিনি তার বক্তব্যের মাধ্যমে সততার পরিচয় দিতে পারেননি। তার বক্তব্যে এটাই মনে হয় যে ফিরোজ মান্না তার রিপোর্টে গৌতম বুদ্ধ সম্পর্কে উইকিপিডিয়ার উদৃতিটি উল্লেখ করেছেন শুধুমাত্র অর্থাৎ যেন উইকিপিডিয়ায় গৌতম বুদ্ধকে সন্ত্রাসীই বলা হয়েছে যার সাথে তারা একমত পোষন করেননা। সত্যি কি জঘন্য বুদ্ধিবৃত্তিক অসততা !
অন্যদিকে ফিরোজ মান্নার ফিচারের মাধ্যমে যে বান্দরবানের স্বর্নমন্দির ও রাঙামাটির রাজবনবিহারের মত বৌদ্ধদের অত্যন্ত পবিত্র ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান সমুহকে সন্ত্রাসীর আখড়া হিসাবে আখ্যায়িত করার অপচেষ্টা করা হলো, মায়ানমারের রোহিংগা ইস্যুকে টেনে এনে বাংলাদেশের ধর্মপ্রান সাধারণ বৌদ্ধ জনগোষ্ঠী ও বৃহত্তর মুসলিম জ্নগোষ্ঠীর মধ্যে মুখামুখি দাড় করানোর পায়তারা করা হলো, সরাসরি সাম্প্রদায়িক উষ্কানী দেওয়া হলো– এ ব্যাপারে সম্পাদক সাহেবের কোন মন্তব্য নেই অর্থাৎ তিনিও উল্লেখিত ফিচারের ব্ক্তব্যের সাথে একমত বলেই ধরে নিতে পারি।
আমি তাদের এ ধরনের হীন প্রবৃত্তির তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। পাশাপাশি দৃঢ়ভাবে এ প্রত্যয় ও ব্যক্ত করছি যাদের প্ররোচনাতেই তারা এ অপচেষ্টা করে থাকুননা কেন, তারা সফল হবেননা।
গৌতম দেওয়ানের ফেসবুক ওয়াল থেকে নেয়া।

বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *