পার্বত্য অঞ্চলে আদিবাসীদের এখনও আদিবাসী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়নি সরকার”- ঊষাতন তালুকদার এমপি

রাঙামাটি প্রতিনিধি: পার্বত্য চট্টগ্রামে তথা বাংলাদেশে রঙালী বিহু উৎসব একটি চমকপ্রদ উৎসব। পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তি চুক্তি হলেও ১১ টি জাতি-গোষ্ঠী এখনও আদিবাসী হিসেবে বাংলাদেশে স্বীকৃতি পায়নি।
বাংলাদেশের সংবিধানে সমতল ও পার্বত্য চট্টগ্রামে ৫৪ টি আদিবাসী জাতি-গোষ্ঠী সাংবিধানিক স্বীকৃতি কথা থাকলেও এখনও সাংবিধানিক ক্ষেত্রে আদিবাসী হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়নি। যা আমাদের সাংস্কৃতিকে বিপন্ন করার পায়তারা পরিকল্পনা করা হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে আহমিয়াদের যাহাতে সাংবিধানিক ক্ষেত্রে স্বীকৃতি প্রদান করা হয় সেক্ষেত্রে সার্বিক প্রচেষ্টা করা হবে। তবে পার্বত্য চট্টগ্রামে সরকারের প্রচেষ্ঠায় চাকমা, মারমা,ত্রিপুরাদের প্রাক প্রাথমিক শিক্ষা ও নিজস্ব মাতৃভাষার বই প্রদান করলেও এখনও পর্যাপ্ত পরিমানে দক্ষ শিক্ষক ও শিক্ষার ব্যবস্থা হয়নি। সরকার বিপন্ন প্রাণী গুলোর সংরক্ষনের ব্যবস্থা করলেও পার্বত্য অঞ্চলে তথা সমগ্র বাংলাদেশের আদিবাসীদের কৃষ্টি সাংস্কৃতিক সংরক্ষনের উদ্যোগ গ্রহন করে নি। এছাড়া তিনি আরও বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তি চুক্তি যদি বাস্তবায়িত হয় তখন ১১ টি জনগোষ্ঠী সহ সমতল সহ পার্বত্য অঞ্চলের ৫৪ টি আদিবাসীদের নিজস্ব অধিকার ফিরে পাবে। তিনি আরও বলেন, কোনকিছু কারোর উপর জোর করে চাপিয়ে দেওয়া উচিৎ নয়। তেমনি বাংলাদেশ সরকার আদিবাসীদের অন্যতম ঐতিহ্যবাহী বিঝু উৎসব নিয়ে বিভিন্ন ভাবে ষড়যন্ত্র করতেছে। বিঝু, বিহু, বৈসুক সাংক্রান কে বাদ দিয়ে বৈসাবিতে রুপান্তের চেষ্টা চালাচ্ছে। কিন্তু সেই বৈসাবি শব্দ আদিবাসীদের যথাযথ কিনা তা কখনও আলোচনা করেন নি বলে রাঙামাটিতে আসামবস্তীর নারিকেল বাগানে আয়োজিত আহমিয়া জনগোষ্ঠীর (আসামী) রঙালী বিহু উৎসব অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ঊষাতন তালুকদার এমপি বক্তব্যে এ কথা বলেন।
রাঙামাটিতে আহমিয়া জনগোষ্ঠীর (আসামী) প্রথম বারের মত অন্যতম উৎসব রঙালী বিহু উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১৮ ই এপ্রিল বিকাল ৩ ঘটিকার সময়ে রাঙামাটি আসামবস্তী নিকটবর্তী নারিকেল বাগানে রঙালী উৎসব উদযাপন কমিটির উদ্যোগে আলোচনা সভা ওসাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে ভারতের আসাম রাজ্যে থেকে আগত অতিথিদের পদচারনায় মুখরিত হয়ে উঠে অনুষ্ঠান মঞ্চ। অনুষ্ঠানে আহমিয়া জনগোষ্ঠী সহ সকলশ্রেণীর সম্প্রদায়ের মিলনে জাঁকজমক ভাবে বাংলাদেশ ও ভারতের আহমিয়াদের এ যেন এক মিলন মেলায় পরিণত হয়েছে । রঙালী বিহু উৎসবে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাঙামাটি পার্বত্য জেলার ২৯৯ নং সংসদ আসনের এমপি ঊষাতন তালুকদার। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভারতীয় রাষ্ট্রীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত শিক্ষিকা শশীপ্রভা দেবী, আসামের তেজপুরের সভাপতি শেখ সাহাব উদ্দিন, প্রপেসর মংসানু চৌধুরী, এমএন লারমা মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের আহব্বায়ক বিজয় কেতন চাকমা, সিএইচটি হেডম্যান নেটওর্য়াকেরর সভাপতি শক্তিপদ ত্রিপুরা, জুম ইনিস্টিটিউটের সভাপতি কবি শিশির চাকমা,রঙালী বিহু উদযাপন কমিটির আহব্বায়ক পংকজ আসাম প্রমূখ। অনুষ্ঠানে সভাপতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আহমিয়া (আসাম) উন্নয়ন সংসদ নীহা আসাম।

বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *