চবিতে রঁদেভূ’র আয়োজনে মাতৃভাষায় বর্ণমালা প্রশিক্ষণ কর্মশালা শুরু

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি, আইপিনিউজ: “আমার বর্ণমালা, আমার অহংকার’” এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে গত ৩০ মে ২০২২ রোজ সোমবার চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত আদিবাসী শিক্ষার্থীদের সাংস্কৃতিক সংগঠন রঁদেভূ শিল্পীগোষ্ঠীর উদ্যোগে আদিবাসী ‘মাতৃভাষায় বর্ণমালা প্রশিক্ষণ কর্মশালা-২০২২’ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে শুরু হয়েছে।
রাজনৈতিক-অর্থনৈতিক আগ্রাসনের পাশাপাশি সাংস্কৃতিক আগ্রাসনের শিকার হওয়া বর্তমান আদিবাসী প্রজন্মের খুব কম সংখ্যক-ই তাদের নিজস্ব মাতৃভাষার বর্ণমালা লিখতে ও পড়তে জানে। চর্চা ও সংরক্ষণের অভাবে একসময় হারিয়ে যেতে পারে মাতৃভাষা। মূলত এই মাতৃভাষাকে বাঁচিয়ে রাখার তরুণ-সচেতন প্রজন্মের যে দায়, সেই দায়বোধ থেকেই রঁদেভূ শিল্পীগোষ্ঠীর এই উদ্যোগ বলে জানিয়েছে আয়োজকরা।

কর্মশালায় অংশগ্রহনকারী আদিবাসী শিক্ষার্থীীরা

উক্ত কর্মশালার বিষয়ে জানতে চাইলে রঁদেভূ শিল্পীগোষ্ঠীর সহ-সভাপতি অম্লান চাকমা বলেন, “শিশুর মনস্তাত্ত্বিক বিকাশের জন্য মাতৃভাষা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। শিশুর শিক্ষার জন্য মাতৃভাষার বিকল্প হতে পারে না। কিন্তু বাংলাদেশের বসবাসরত আদিবাসীরা সেই ব্রিটিশ শাসনামল থেকে বর্তমান বাংলাদেশে সে সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে শতাব্দী থেকে শতাব্দী ধরে। তারা না পাচ্ছে মাতৃভাষায় শিক্ষার সুযোগ, না পাচ্ছে দৈনন্দিন জীবনে নিজের ভাষা তথা সংস্কৃতি চর্চার সুযোগ। ফলে তারা তাদের এসব সমৃদ্ধ সংস্কৃতি, ভাষা হারাতে বসেছে দিনদিন।”
তিনি আরো বলেন, “মাতৃভাষায় শিক্ষা লাভের অধিকার আদায়ের দীর্ঘ সংগ্রামের পর ২০১৪ সালে ৫টি ভাষার প্রাক-প্রাথমিকের আদিবাসী শিশুদের হাতে বই তুলে দেওয়ার কথা বলা হলেও তা সম্ভব হয় ২০১৭ সালে। কিন্তু এসব ভাষায় প্রশিক্ষিত শিক্ষক না থাকায় তা পুরোপুরি বাস্তবায়ন সম্ভব হচ্ছে না। আদিবাসী সমাজ নিজেদের পরিবার ও গ্রামে নিজেদের মধ্যে মাতৃভাষায় মৌখিকভাবে যোগাযোগ করলেও সাহিত্য-সংস্কৃতি চর্চা ও বিকাশে মাতৃভাষাসমূহ জোরালোভাবে ব্যবহার করতে পারছে না শুধুমাত্র মাতৃভাষায় শিক্ষার অভাবে। একটি ভাষার সুরক্ষা ও বিকাশের জন্য দরকার মাতৃভাষায় সৃজনশীল ও মননশীল সাহিত্য রচনা ও চর্চা। আদিবাসী সমাজের তরুণ প্রজন্মের সাহিত্যকর্মীদের সমৃদ্ধ সাহিত্য ও সৃজনশীল সংস্কৃতি গড়ে তোলার ইচ্ছা থাকলেও সাহিত্য রচনায় নিজ নিজ মাতৃভাষা ও বর্ণমালা খুব একটা ব্যবহার করতে পারছে না।”

তিনি এইসব সংকট দূর করার জন্য রঁদেভূ শিল্পীগোষ্ঠী’র আদিবাসী ‘মাতৃভাষায় বর্ণমালা প্রশিক্ষণ কর্মশালা’ সুফল বয়ে আনবে বলে মনে করেন।

এছাড়া কর্মশালার আহ্বায়ক সজীব তালুকদার বলেন, “আমাদের আদিবাসীদের নিজ নিজ মাতৃভাষার বর্ণমালা নিয়ে কাজ করতে পেরে আমি অত্যন্ত আনন্দিত। এ ক্ষুদ্র উদ্যোগ আশা করি ভবিষ্যতে ভাষা নিয়ে গবেষণা বা কাজ করতে অন্যদের মাঝে আরো উৎসাহ জাগাবে।”

উল্লেখ্য যে, রঁদেভূ শিল্পীগোষ্ঠী আদিবাসী মাতৃভাষায় বর্ণমালা প্রশিক্ষণ কর্মশালায় মোট পাঁচটি আদিবাসী (রাখাইন, ম্রো, তঞ্চঙ্গ্যা, মারমা, চাকমা) ভাষার প্রশিক্ষণের আয়োজন করা হয়েছে। কর্মশালাটি একমাস ব্যাপি চলবে এবং প্রায় ৮০ জনের অধিক আদিবাসী শিক্ষার্থী কর্মশালায় অংশগ্রহণ করছে। এবারের কর্মশালায় আদিবাসী মাতৃভাষায় দক্ষ চবির শিক্ষার্থীবৃন্দ প্রশিক্ষক হিসেবে থাকবেন।
এছাড়াও কর্মশালাতে বিশিষ্ট সাহিত্যিক ও ভাষা গবেষক ইনজেব চাকমা অতিথি প্রশিক্ষক হিসেবে থাকবেন বলে জানা গেছে।

বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published.