জাতীয় বাজেটে শ্রমজীবি মানুষের সামাজিক সুরক্ষা নিশ্চিতের দাবি সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের

আইপিনিউজ ডেক্স(ঢাকা):জাতীয় শ্রমিক জোট ও সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের যৌথ আয়োজনে পল্টনের মোড়ে আজ শুক্রবার, সকাল ১০ টায় বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধির প্রস্তাবনা প্রত্যাহার, নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের দাম কমানো ও আসন্ন জাতীয় বাজেটে শ্রমজীবি মানুষের সামাজিক সুরক্ষা নিশ্চিত করার দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।
মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সদস্য ও বিশ্ব ট্রেড ইউনিয়ন ফেডারেশনের প্রেসিডিয়াম সদস্য এবং জাতীয় শ্রমিক জোট সভাপতি মেসবাহ উদ্দিন আহমেদ।

মানববন্ধনের সভাপতি মেসবাহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, করোনার বিপর্যয় কেটে না উঠতেই রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ বিশ্বব্যাপী জটিল পরিস্থিতিকে আরো জটিলতর করে তুলেছে। প্রায় তিন মাস থেকে চলা এই যুদ্ধ কোথায় গিয়ে ঠেকবে তা কারো জানা নেই। ইতোমধ্যে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাবে জ্বালানী তেলের মূল্যের বৃদ্ধি ও তার প্রভাবে নতুন করে উৎপাদন, বন্টন, বাণিজ্য সহ বিশ্বব্যাপী জনজীবনে অন্ধকার নেমে এসেছে। জ্বালানী তেলের মূল্য বৃদ্ধির অজুহাতে সব ধরনের ভোগ্য পণ্য পৃথিবীর সর্বত্রই দাম বৃদ্ধি পাওয়ার কথা শোনা যাচ্ছে। আমাদের দেশেও এর প্রভাবে লাগাতারভাবে দ্রব্যমূল্য বিশেষ করে, ভোজ্য তেল, চাল, ডাল, আটা, ময়দা সহ সকল পণ্যের দাম বৃদ্ধি জনজীবকে বিপর্যস্ত করে তুলেছে। বিশেষ করে শ্রমজীবী ও নিম্ন আয়ের মানুষগুলো পরিবার পরিজন নিয়ে এখন দিশেহারা। মানুষের মোট আয়ের উপর দ্রব্য মূল্যের প্রভাব পড়ায় সর্বত্র অস্থির পরিস্থিতি বিরাজ করছে। অন্যদিকে এক শ্রেণীর অসাধু মজুতদার কালোবাজারী ব্যবসায়ীরা এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মজুত বৃদ্ধি করে পণ্যের কৃত্রিম সংকট তৈরী করে নিজেদের হীন স্বার্থ হাসিল করছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এ কে আজাদ বলেন, নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের নিয়ন্ত্রণহীন দাম বৃদ্ধির পরিস্থিতিতে দেশে ইতোমধ্যে বিদ্যুতের দাম ৫৮ শতাংশ বৃদ্ধির প্রস্তাবনা দেশবাসীকে হতাশ করেছে। বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরী কমিশন (বিইআরসি) এর বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির প্রস্তাবনার বিরুদ্ধে ইতোমধ্যে দেশের অর্থনীতিবিদ, রাজনীতিক, ব্যবসায়ী, শিক্ষক, বুদ্ধিজীবী সহ সকল শ্রেণী পেশার প্রতিনিধি নানাভাবে ক্ষোভ প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছে। মূলত: বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির সাথে সকল ধরণের উৎপাদন, বন্টন, বাণিজ্য সহ সমাজের সর্বস্তরে বিরূপ প্রভাব পড়বে। দেশে এক ধরণের নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি তৈরী করবে। বর্তমান সময়ে জ্বালানী তেলের মূল্য বৃদ্ধির এই প্রস্তাবনা জাতীয় আত্মহত্যার সামিল হিসেবে পরিগণিত হবে। আমরা এই প্রস্তাবনা প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছি।

সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের সাধারণ সালেহ আহমেদ বলেন, জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঘনিয়ে আসলে দেশে অস্থিরতা তৈরী করার হীন প্রচেষ্টা চালানো হয়। এতে সমাজের দুর্বল জনগোষ্ঠী বিশেষ করে সংখ্যালঘু, আদিবাসীদের উপর নিপীড়ণের খড়গ নেমে আসে। এমনকি সংখ্যালঘুদের দেশত্যাগে বাধ্য করা হয়। আমাদের এখন থেকে সেই সব বিষয়ে অধিকতর সতর্ক থাকতে হবে। জাতীয় সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। আসন্ন জাতীয় বাজেটে সমাজের দুর্বল জনগোষ্ঠী ও সংখ্যালঘুদের সামাজিক নিরাপত্তা সুরক্ষায় বরাদ্দ রাখারও দাবী করেন তিনি।

আয়োজিত মানববন্ধনে আরো বক্তব্য রাখেন জাতীয় শ্রমিক জোটের কার্যকরী সভাপতি আব্দুল ওয়াহেদ, সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এ কে আজাদ, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য অলক দাশ গুপ্ত, জাতীয় শ্রমিক জোটের সাধারণ সম্পাদক নূরুল আমিন, সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যাপক জাহাঙ্গির আলম সবুজ, জাতীয় শ্রমিক জোটের সহ-সভাপতি সালেহা ইসলাম শান্তনা প্রমুখ।

মানববন্ধনের ঘোষণা উপস্থাপন করেন সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট পারভেজ হাসেম।
মানববন্ধন সঞ্চালনা করেন সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক সালেহ আহমেদ।
মানববন্ধনে আসন্ন বাজেটকে সামনে রেখে শ্রমিক, কৃষক ও সাধারণ মানুষের স্বার্থে নিন্মোক্ত দাবী জানানো হয়:

১. চাল, ডাল, আটা, ময়দা, পেয়াজ, রসুন, ভোজ্য তেল সহ সকল নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম কমাতে হবে।
২. বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির প্রস্তাব প্রত্যাহার করতে হবে।
৩. জাতীয় ন্যুনতম মজুরী ২০,০০০ টাকা ঘোষণা করতে হবে।
৪. শ্রমজীবী মানুষদের জন্য স্থায়ী রেশনিং ব্যবস্থা চালু করতে হবে।
৫. বিদ্যুৎ, গ্যাসখাতসহ সরকারি বেসরকারি পর্যায়ের সকল উন্নয়ন কাজের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহীতা নিশ্চিত করতে হবে।
৬. অর্থ পাচারকারী, ঋনখেলাপীদের সম্পদ বাজেয়াপ্ত করতে হবে।
৭. কুইকরেন্টালসহ অপ্রয়োজনীয় সকল বিদ্যুৎ কেন্দ্র বন্ধ করতে হবে।
৮. সংখ্যালঘু ও আদিবাসী নিপীড়ন বন্ধ করতে হবে।
৯. নারী-শিশু নির্যাতন ও পাচার বন্ধ করতে হবে।

বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published.