হাজং জাতির অস্তিত্ব ও সংস্কৃতি রক্ষায় যুব সমাজকেই এগিয়ে আসতে হবে

বাংলাদেশ হাজং ছাত্র সংগঠন (বাহাছাস), শেরপুর জেলা শাখার আয়োজনে গত ২৫ মার্চ শুক্রবার শেরপুর জেলার নালিতাবাড়ী থানার দাওয়াকুড়া গ্রামে হাজং কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

উক্ত আলোচনা সভায় বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের কেন্দ্রীয় সদস্য ও জাতীয় হাজং সংগঠন কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক সোহেল হাজং বলেন, হাজং জাতি জনসংখ্যায় খুবই ছোট একটি জাতি ও দেশের অবহেলিত আদিবাসী জাতিগোষ্ঠীর মধ্যে একটি হলেও বিভিন্ন সীমাবদ্ধতার মধ্যেও হাজং ছেলেমেয়েরা এখন পড়াশুনায় এগিয়ে যাচ্ছে । জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে হাজং যুবরা নিজেদের তোলে ধরার চেষ্টা করছে। যা খুবই প্রশাংসনীয়।কিন্তু একই সাথে এ সামজের লোকদের ওপর এখনও কোথাও কোথাও বিভিন্ন মানবাধিকার লঙ্ঘণের ঘটনা বিরাজমান আছে। এছাড়া নতুন প্রজন্মের ছেলেমেয়েরা হাজং সংস্কৃতি চর্চা ও জাতিত্ববোধ থেকে দূরে সরে আসার প্রবণতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে যা স্বজাতির অস্তিত্ব রক্ষায় শঙ্কা তৈরি করছে। এভাবে চলতে থাকলে হাজং জাতির ঐতিহ্যবাহী ভাষা ও সংস্কৃতি একসময় হারিয়ে যাবে। তাই আমাদের যুব সমাজকে এ বিষয়ে আরো গুরুত্ব সহকারে ভাবতে হবে, সংগঠিত হতে হবে এবং সংস্কৃতি রক্ষায় বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করতে হবে।

বাহাছাস শেরপুর জেলা শাখার সভাপতি সুষ্ময় হাজংয়ের সভাপতিত্বে উক্ত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ জাতীয় হাজং সংগঠন শেরপুর জেলা শাখার সভাপতি সুকুমার চন্দ্র হাজং, সাধারণ সম্পাদক শ্যামল সরকার, মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা কল্পনা রানী হাজং, সেন্টু শাইল ধানের উদ্ভাবক সেন্টু হাজং, হাজং সমাজে আত্মহত্যা ও বিজাতিগমন রোধ আন্দোলনের প্রথম সারির যুবনেতা অন্তর হাজং।

অনুষ্ঠানে শেরপুর জেলার গত ২০২০ ও ২০২১ সনে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় ঊত্তীর্ণ ৩৫ জন হাজং শিক্ষার্থীকে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়। হাজং শিক্ষার্থীদের উচ্চ শিক্ষা গ্রহণে প্রতিবন্ধকতা, সুন্দর ও উপযোগি পথ বেঁছে নিতে দিকনির্দেশনা, সংস্কৃতি রক্ষায় যুবদের করণীয় এসব বিষয়েও আলোচনা করা হয়। আলোচনা শেষে হাজং শিক্ষার্থীদের পরিবেশনায় একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়।

বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published.