মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে রাজশাহী মানবাধিকার জোটের র‍্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

‘’বৈষম্য ঘোচাও, সাম্য বাড়াও, মানবাধিকার সুরক্ষা দাও’’ প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে রেখে রাজশাহী মানবাধিকার জোট গতকাল ১৩ ডিসেম্বর ২০২১ তারিখে র‌্যালী এবং আলোচনা সভার আয়োজন করেছে। অনুষ্ঠানের শুরুতে সকাল ১০.০০টায় নগরীর আলুপট্টি মোড় থেকে র‌্যালি করে জিরোপয়েন্টে শেষ হয়। এরপর মানবাধিকারের সার্বিক পরিস্থিতির উপর হোটেল ওয়ারিসনে ১০.৩০টায় আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী জেলার জেলা প্রশাসক আব্দুল জলিল। আমন্ত্রিত অতিথিদের আসন গ্রহনের পর স্বাগত বক্তব্য রাখেন রাজশাহী মানবাধিকার জোটের সভাপতি এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও সাবেক উপ-উপাচার্য প্রফেসর. চৌধুরী সারওয়ার জাহান। মানবাধিকারের উপর প্রবন্ধ পাঠ করেন বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন এবং মানবাধিকার বিষয়ক ডিপার্টমেন্টের শিক্ষক রাবিতা রেজওয়ানা। মানবাধিকারের উপর অবদান রাখার জন্য জোটের পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসক জনাব আব্দুল জলিল, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপ-উপাচার্য প্রফেসর. চৌধুরী সারওয়ার জাহান, দৈনিক সোনার দেশ প্রত্রিকার সম্পাদক আকবারুল হাসান মিল্লাত এবং আদিবাসীদের সংগঠন জাতীয় আদিবাসী পরিষদ’কে সম্মাননা স্বারক প্রদান করা হয়। একই সাথে গোদাগাড়ী, তানোর এবং পবা উপজেলার ২০ জন আদিবাসী নারীদের এক মাস সেলাই প্রশিক্ষনের পর জেলা প্রশাসক তাদের জীবনমান উন্নয়নের জন্য সেলাই মেশিন বিতরণ করেন।

জোটের সদস্য সচিব রাজকুমার শাও’র সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, দৈনিক সোনার দেশ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক হাসান মিল্লাত, বিউপির নির্বাহী পরিচালক ফয়জুল্ল্যাহ চৌধুরী, সংকল্প সোসাইটির নির্বাহী পরিচালক এভারেষ্ট হেমব্রম, বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা শাহাজাহান আলি বরজাহান, জাতীয় আদিবাসী পরিষদ রাজশাহী জেলার সভাপতি বিমল চন্দ্র রাজোয়াড়, মো: জালাল উদ্দিন, নির্বাহী পরিচালক, তৃণমুল সংস্থা এবং তৃতীয় লিঙ্গের প্রতিনিধি সাগরীকা।

এছাড়া আরও উপস্থিত ছিলেন, আর. কে. দত্ত রুপম, নির্বাহী পরিচালক সেফ(এসএসএসএফ), এডাব রাজশাহী বিভাগের বিভাগীয় সমন্বয়কারী মো: ওয়াহিদুর রহমান, আসক্ত পূর্নবাসন সংস্থা (আপুস)’র নির্বাহী পরিচালক মো: আবুল বাসার, ব্লাস্ট রাজশাহীর সমন্বয়কারী সামিনা বেগম, জাতীয় আদিবাসী পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির দপ্তর সম্পাদক সুভাষ চন্দ্র হেমব্রম, রাজশাহী জেলার সাধারণ সম্পাদক সুশেন শ্যামদুয়ার, দিঘরী রাজা পরিষদ গোদাগাড়ীর উপদেষ্টা চিত্তরঞ্জন সরদার, আদিবাসী ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি নকুল পাহান, আরএসডিপি’র নির্বাহী পরিচালক মো: জাহাঙ্গীর আলম, কল্পনা প্রতিবন্ধি উন্নয়ন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক সোহেল রানা প্রমুখ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক জনাব আব্দুল জলিল বলেন, মানুষের ইতিহাস হত্যা, ধর্ষণ আর লুন্ঠনের ইতিহাস, যেখানে প্রতিনিয়ত মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটেছে। মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার যে যুদ্ধ সেখানে আমাদের অংশগ্রহণ করতে হবে। যুদ্ধে অংশগ্রহণ করতে হবে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য। সকল প্রকার নাগরিক অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য কাজ করতে হবে। উন্নয়নের সম্প্রসারণ মানে হল মানুষের স্বাধীনতা এবং ইচ্ছার প্রকাশের অধিকার।

মানবাধিকার জোটের সভাপতি, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপ-উপাচার্য প্রফেসর. চৌধুরী সারওয়ার জাহান বলেন, রাজশাহী অঞ্চলের মানুষের মানবাধিকার লঙ্ঘনের আরেকটি বড় ক্ষেত্র হল পানির প্রকট সমস্যা। এই অঞ্চলের মানুষের পানির সমস্যা যদি সমাধান দেওয়া যায় তাহলে মানবাধিকারের আরেকটি দিকের উন্নয়ন ঘটবে।

দৈনিক সোনার দেশ প্রত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক আকবারুল হাসান মিল্লাত বলেন, আমরা রাজশাহী মানবাধিকার জোট ৩২টি স্থানীয় সংস্থা নিয়ে কাজ করছি রাজশাহীর মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে। আমরা সকলে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার চেষ্টা করছি যাতে মানবাধিকার লঙ্ঘণ না হয়।

জাতীয় আদিবাসী পরিষদ রাজশাহী জেলার সভাপতি বিমল রাজোয়াড় বলেন, আদিবাসীদের মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় আদিবাসী ভূমিহীনদের জন্য কাজ করতে হবে। আদিবাসীদের মাঝে যেন শিক্ষা, চাকরি, কর্মসংস্থান তৈরী হয় সেক্ষেত্রে আমাদের জোটবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে।

তৃতীয় লিঙ্গের প্রতিনিধি সাগরীকা বলেন, মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় আরো কাজ করতে হবে। যুক্তিসংগত মানবাধিকার কাজে আমাদেরকে যুক্ত করতে হবে। লিঙ্গভেদে সকলের জন্য কাজ করতে হবে।

বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *