দলিত ও আদিবাসীদের মামলাগুলো বিশেষ নজর দিতে হবে: মতবিনিময় সভায় বক্তারা

আদিবাসী ও দলিত জনগোষ্ঠীর আইনি সহায়তা সহজলভ্য করার জন্য দিনাজপুরে বিজ্ঞ বিচারকবৃন্দের সাথে অ্যাডভোকেসি প্লাটফর্মের মতবিনিময় সভা স্বাস্থ্যবিধি মেনে অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ সম্মেলন কক্ষে দিনাজপুর জেলা অ্যাডভোকেসি প্লাটফর্মের আয়োজনে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ এবং জেলা লিগ্যাল এইড কমিটির সভাপতি আজিজ আহমদ ভুঞা।

জেলা অ্যাডভোকেসি প্লাটফর্মের সভাপতি চিত্ত ঘোষ এর সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুন্যালের বিচারক (সিনিয়র জেলা জজ) শরিফ উদ্দিন আহমেদ, চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বি এম তারিকুল কবীর, অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মেহেদী হাসান মন্ডল, হেকস্/ইপার এর ম্যানেজার অ্যাডভোকেসি এন্ড রাইটস বেইজড ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম সাইবুন নেসা, এনএনএমসি ফাউন্ডেশনের সভাপতি সবিন চন্দ্র মুন্ডা।

উন্মুক্ত আলোচনায় বক্তব্য রাখেন সিনিয়র সহকারী জজ এস, এম শফিকুল ইসলাম, বীরগঞ্জ সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ এবং জেলা অ্যাডভোকেসি প্লাটফর্মের কার্যকরি সদস্য ড. মাসুদুল হক, এনএনএমসি ফাউন্ডেশনের ফোকাল পারসন নরেন চন্দ্র পাহান, দিনাজপুর পৌরসভার সাবেক মেয়র ও জেলা অ্যাডভোকেসি প্লাটফর্মের কর্যকরি সদস্য বীরমুক্তিযোদ্ধা মো. সফিকুল হক ছুটু, রংপুর জেলা অ্যাডভোকেসি প্লাটফর্মের সভাপতি অ্যাডভোকেট মনিলাল দাস, জেলা অ্যাডভোকেসি প্লাটফর্মের সহ-সভাপতি রাবেয়া খাতুন, দপ্তর সম্পাদক (মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক-লেখক) আজহারুল আজাদ জুয়েল, যুগ্ম সম্পাদক রংলাল বাঁশফোর, জেলা অ্যাডভোকেসি প্লাটফর্মের কার্যকরি সদস্য কমল কিস্কু, এডওয়ার্ড হেমরম, শিউলী বাড়া, হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের আদিবাসী শিক্ষার্থী জেসমিন মার্ডি, দলিত প্রতিনিধি মেরি বাঁশফোর, পরেশ ঋষি, আদিবাসী প্রতিনিধি রেখা হাসদা, কৃষ্ণ কড়া প্রমুখ।


প্রধান অতিথি বলেন, সুইপারের ছেলে সুইপার হবে, এমন ভাবনা ভাবা উচিত হবে না। দলিত ও নৃত্বাত্মিক জনগোষ্ঠীসহ পিছিয়ে পড়া সকল জনগোষ্ঠীর জন্য রাষ্ট্র আইন দ্বারা সুরক্ষার ব্যবস্থা করেছেন। সরকারের গৃহীত পদক্ষেপে আইনী সুরক্ষা পাওয়া দলিত, নৃ-ত্বাত্মিক, দরিদ্র মানুষের অধিকারে পরিনত হয়েছে। তিনি বলেন, আদিবাসী এবং দলিত সম্প্রদায়ের আইনি সহায়তা সহজলভ্য করার জন্য দিক নির্দেশনা প্রদান করেন এবং আদিবাসী ও দলিত সম্প্রদায়ের মামলা সমুহে ন্যায় বিচার পাওয়ার জন্য আশ্বস্ত প্রদান করেন। এছাড়া তিনি বলেন, বঞ্চনার শিকার আদিবাসী ও দলিত জনগোষ্ঠীর লিগ্যাল এইড সেবা প্রদানের মাধ্যমে আইনি সহায়তা প্রদান করা হবে এবং দিনাজপুর আদালতে বিচারাধীন আদিবাসীদের মামলাগুলো তালিকা করে বিশেষ নজর দিতে হবে।

জেলা লিগ্যাল এইড কমিটির সভাপতি জেলা ও দায়রা জজ আজিজ আহমদ ভুঞা আরো বলেন, সমাজের কেউ পিছিয়ে থাকবে রাষ্ট্র এমনটা চায়না। তাই দলিত ও নৃত্বাত্মিক জনগোষ্ঠীসহ পিছিয়ে পড়া সকল জনগোষ্ঠীর জন্য রাষ্ট্র আইন দ্বারা সুরক্ষার ব্যবস্থা করেছেন। দরিদ্র জনগোষ্ঠী আর্থিক সামর্থ না থাকায় আইনী সহায়তা হতে যেন বঞ্চিত না হয় সে জন্য লিগ্যাল এইড এর ব্যবস্থা করেছেন। ফলে আইনী সুরক্ষা পাওয়া দলিত, নৃত্বাত্মিক, দরিদ্র মানুষের অধিকারে পরিনত হয়েছে। যার অর্থ নাই তিনিই লিগ্যাল এইড এর সহায়তা নিয়ে আইনী সেবা পাবেন। সরকার বিনা মূল্যে শিক্ষার সুযোগ করে দিয়েছেন। এর ফলে দলিত, নৃত্বাত্মিক ও পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর সন্তানদের সুশিক্ষিত করার সুযোগ তৈরী হয়েছে। সেই সুযোগ কাজে লাগাতে হবে।

ভারতের সংবিধান প্রণেতা আম্বেদকর, জগজীবন রাম এর উদাহরণ টেনে তিনি বলেন, শিক্ষা মানুষকে এগিয়ে নিয়ে যাবে। সুইপারের ছেলে সুইপার হবে এমন ভাবনা বাদ দিয়ে সন্তানদের শিক্ষিত করতে হবে যেন তারা আমাদের মত জজ, ম্যাজিস্ট্রেট হতে পারেন।

এর আগে মুল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন এনএনএমসি ফাউন্ডেশন এর অ্যাডভোকেসি অফিসার পাপন কুমার সরকার। শেষে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন জেলা অ্যাডভোকেসি প্লাটফর্মের সাধারণ সম্পাদক আলবিনুস টুডু।

মতবিনিময় সভায় জেলার সকল বিচারকবৃন্দ, আদিবাসী ও দলিত সম্পদ্রায়ের প্রতিনিধিবৃন্দ এবং মূলস্রোত ধারার প্রতিনিধিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *