অবশেষে শর্ত সাপেক্ষে মিলল ঝুমন দাশের জামিন

বিতর্কিত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের করা মামলায় ৬ মাসেরও বেশি সময় ধরে কারাগারে থাকা ঝুমন দাশ আপনকে শর্তসাপেক্ষে এক বছরের জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট।

হাইকোর্টের আদেশে বলা হয়েছে, সংশ্লিষ্ট নিম্ন আদালতের অনুমতি ছাড়া আগামী এক বছরের জন্য নিজ জেলা সুনামগঞ্জের বাইরে যেতে পারবেন না ঝুমন দাশ।

ঝুমন দাশের মা নিভা রানি দাশ এই মামলায় জামিন চেয়ে যে আবেদন করেছিলেন তার পরিপ্রেক্ষিতে বিচারপতি মুস্তাফা জামান ইসলাম ও বিচারপতি কেএম জাহিদ সারওয়ার কাজলের হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দিয়েছেন।

আবেদনকারীর আইনজীবী জেডআই খান পান্না গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, হাইকোর্টের জামিনের আদেশের পর সুনামগঞ্জ কারাগার থেকে ঝুমন দাশের মুক্তি পেতে কোনো আইনি বাধা নেই।

এদিকে আইনজীবী তাবারক হোসেন, সুব্রত চৌধুরী, নাহিদ সুলতানা জুথি ও আশরাফ আলীও আবেদনকারীর পক্ষে আদালতে উপস্থিত ছিলেন। অন্যদিকে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ইয়াহিয়া দুলাল ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল মো. মিজানুর রহমান রাষ্ট্রের প্রতিনিধিত্ব করেন।

ঝুমান দাশের মা নিভা রানি দাশ সম্প্রতি ছেলের জামিনের আবেদন করে বলেছিলেন, ঝুমন বিনা বিচারে দীর্ঘদিন ধরে কারাগারে ভুগছেন।

সাবেক হেফাজত নেতা মামুনুল হকের বক্তব্যের প্রতিবাদে ঝুমন দাশ গত ১৬ মার্চ ফেসবুকে একটি পোস্ট দেন। ওই ঘটনাকে ধর্মীয় উস্কানির অভিযোগে মামুনুল হকের অনুসারীরা রাতে বিক্ষোভ মিছিল করেন এবং পুলিশ ওই রাতেই ঝুমন দাশকে গ্রেপ্তার করে।

প্রায় এক সপ্তাহ পর ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার ঝুমন দাশের বিরুদ্ধে পুলিশ বাদী হয়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করে। ওই মামালায় ৬ মাসের বেশি কারগারে থাকেন ঝুমন দাশ।

সম্প্রতি ঝুমন দাশের মুক্তি চেয়ে সরব হয় দেশের বিভিন্ন মহলের নেতৃবৃন্দ। প্রগতিশীল ও অসাম্প্রদায়িক চেতনার অধিকারী অনেকেই ঝুমন দাশের মুক্তি চেয়ে শাহবাগের সমাবেশে যুক্ত হয়েছিলেন সম্প্রতি এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সরব ছিলেন।

বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *