গণমাধ্যমকর্মী প্রিন্স এডওয়ার্ড মাংসাংকে বর্বর নির্যাতনের প্রতিবাদে শাহবাগে মানববন্ধন

টাঙ্গাইলের মধুপুর উপজেলার গণমাধ্যম কর্মী প্রিন্স এডওয়ার্ড মাংসাং কে বর্বর নির্যাতনের প্রতিবাদে আহ ২৭আগস্ট ২০২১, শুক্রবার, বিকাল ৪.০০ টায় শাহবাগের জাতীয় জাদুঘরের সামনে একটি মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিক্ষুব্ধ সচেতন নাগরিক সমাজের আয়োজনে অনুষ্ঠিত উক্ত মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন ঢাকা ওয়ানগালার নকমা শুভজিৎ সাংমা।

গাসু’র ঢাকা মহানগরের সভাপতি সতীর্থ চিরানের সঞ্চালনায় সংহতি বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক হরেন্দ্রনাথ সিং, বাংলাদেশ আদিবাসী যুব ফোরামের সভাপতি অনন্ত বিকাশ ধামাই, মানবাধিকার কর্মী আহম্মেদ আমান মাসুদ, বাগাছাসের ঢাকার সভাপতি প্যট্রিক চিসিম, গাসু’র ঢাকা মহানগর শাখার আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মৃন্ময় চিরান।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, টাঙ্গাইল জেলার মধুপুর উপজেলায় গণমাধ্যমকর্মী প্রিন্স এডুওয়ার্ড মাংসাং কে অরণকোলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম কর্তৃক গাছে বেধেঁ মধ্যযুগীয় কায়দায় বর্বর নির্যাতনে শিকার হন। বক্তারা অরণখোলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রহিমের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান মানববন্ধনে।

বক্তারা আরো বলেন, গত ১৮ আগষ্ট অরণখোলা গ্রামের ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহিমের বাড়ীর পাশে পুকুরে ডুবে ২ শিশু নিখোঁজের ঘটনায় সংবাদ সংগ্রহ করতে যান “দৈনিক নবতান” অনলাইন পত্রিকা মধুপুরের সংবাদদাতা প্রিন্স এডুওয়ার্ড মাংসাং। তার কিছুদিন পূর্বে আব্দুর রহিম চেয়ারম্যানের দুর্নীতি নিয়ে একটি অনলাইন সংবাদ মাধ্যমে খবর প্রকাশ করেন তিনি। তাই এই পূর্ব শত্রুতার জের ধরে তাকে গাছে বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় বর্বর নির্যাতন করে, উক্ত ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম। শুধু এমন বর্বর নির্যাতন করেই শুধু থেমে থাকেনি। তার ব্যবহৃত মোটর সাইকেল, সংবাদ চিত্র ধারনের ক্যামেরা, কলম ও মোবাইল সহ কাছে থাকা টাকা নিয়ে নেয়া হয়েছে। উল্টো মিথ্যা মামলা দিয়ে জেল-হাজতে পাঠায় এই গণমাধ্যম কর্মীকে। গণমাধ্যম কর্মীর উপর এমন বর্বর নির্যাতন যা মানবাধিকার লঙ্ঘনের বহিঃপ্রকাশ বলেও দাবি করেন বক্তারা।

এমন ঘটনায় চরম উদ্বেগ ও ক্ষোভ জানিয়ে ঘটনার হোতা আব্দুল রহিম সহ যারা জড়িত ছিলেন তাদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করার জোর দাবি জানান বক্তারা।

বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *