খাগড়াছড়ির নির্বাচনে দায়িত্ব প্রাপ্ত কেউ পক্ষপাত করলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে-নির্বাচন কমিশনার

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধিঃ খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার অবাধ-নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে দেশের সব রাজনৈতিক দলের আস্থা অর্জন করতে কাজ করছে নির্বাচন কমিশন। মঙ্গলবার দুপুরে খাগড়াছড়ির নবগঠিত গুইমারা উপজেলা পরিষদের প্রথম নির্বাচন উপলক্ষে প্রার্থী এবং নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সাথে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে নব নিযুক্ত নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল(অব:) মো: শাহাদাত হোসেন চৌধুরী এ কথা বলেন।
এসময় তিনি প্রার্থীদের আশ্বন্ত করে বলেন, নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কেউ যদি দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে পক্ষপাত করেন কমিশনকে অবহিত করবেন। নির্বাচন কমিশন জনগণের আস্থা অর্জনে কাজ করছে উল্লেখ করে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব:) মো: শাহাদাত হোসেন চৌধুরী সকলের সহযোগিতা কামনা করে বলেন, এ কমিশনের অধীনে রাঙ্গামাটি জেলার বাঘাইছড়ি পৌরসভা নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয়েছে। গুইমারা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনও এমনিভাবে দৃষ্টান্ত স্থাপন হবে।
বিএনপির মনোনিত প্রার্থী মো: ইউসুফ এবং আঞ্চলিক দল ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট(ইউপিডিএফ) সমর্থিত প্রার্থী উশ্যেপ্রু মারমার এ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে বিভিন্ন শঙ্কার প্রশ্নে নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল(অব:) মো: শাহাদাত হোসেন চৌধুরী বলেন, নির্বাচনকে সুষ্ঠ ও সুন্দর করতে করনীয় সব রকমের পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। নির্বাচনে আইন শৃঙ্খলা বজায় রাখতে কমিশন জিরো টলারেন্স মনোভাব নিয়েছে। সুষ্ঠ নির্বাচন উপহার দিতে যা যা করার দরকার তা অবশ্যই করবে নির্বাচন কমিশন।
সভায় নির্বাচনের সাথে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, একটি সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া। এ জন্যে চারস্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। বিজিবি ও র্যা ব মোতায়নের পাশাপাশি নিরাপত্তা বাহিনীর টহল মোবাইল টহল চলবে। সাদা পোশাকে গোয়েন্দা পুলিশ মোতায়েন থাকবে প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে। নির্বাচনের পরও তিন দিন পর্যন্ত বিশেষ নিরাপত্তা টহল চলবে।
খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক মোঃ রাশেদুল ইসলামের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ৪০বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্ণেল মোহাম্মদ খালিদ, পুলিশ সুপার মো: মজিদ আলী বিপিএম-সেবা এবং জেলা আনসারের অধিনায়ক রাজীব হোসেন, রিটার্নিং অফিসার ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক এটিএম কাউছার হোসেন ও সহকারী রিটার্নিং অফিসার বিএম মশিউর রহমান, প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ, সুশীল সমাজের প্রতিনিধিসহ নির্বাচন সংশ্লিষ্ট স্থানীয় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী কর্মকর্তা।
উল্লেখ্য, আগামী ৬মার্চ গুইমারা উপজেলা পরিষদের প্রথম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এই উপজেলায় মোট ভোটার সংখ্যা ২৭হাজার ৯৯২জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১৪, ৩৬৭জন, ও মহিলা ১৩,৬২৫জন ভোটার তাদের ভোট প্রয়োগ করবেন। নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৩জন ও ভাইস-চেয়ারম্যান ০৪জন ও মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান পদে ০২প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। প্রসঙ্গত, ২০১৪সালের ৬জুন অনুষ্ঠিত প্রশাসনিক পূনর্বিন্যাস সংক্রান্ত জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির(নিকার) ১০৯তম সভায় নতুন উপজেলা হিসেবে গুইমারাকে অনুমোদন দেয়া হয়।

বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *