কলামিস্ট আবুল মকসুদের প্রতি আদিবাসী সংগঠন সমূহের ফুলেল শ্রদ্ধা

বাংলাদেশের খ্যাতিমান কলামিস্ট, গবেষক, সাংবাদিক ও আদিবাসীদের অধিকার আদায়ের আন্দোলনের অকৃত্রিম বন্ধু সৈয়দ আবুল মকসুদ হঠাৎ চলে গেলেন। গতকাল ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১ মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭:৩০ টায় তিনি রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন। খ্যাতিমান এই কলামিস্ট, গবেষক ও লেখককে শ্রদ্ধা জানাতে তাঁর মরদেহ আজ জাতীয় প্রেসক্লাব এবং শহীদ মিনার প্রাঙ্গনে নিয়ে আসা হয়। শহীদ মিনারে সর্বস্তরের শ্রদ্ধা নিবেদনের মধ্যে আদিবাসী সংগঠনের নেতৃবৃন্দও ফুলেল শ্রদ্ধা জানিয়েছেন তাঁদের অকৃত্রিম এই বন্ধুকে।

পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি, বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরাম, কাপেং ফাউন্ডেশন, বাংলাদেশ আদিবাসী নারী নেটওয়ার্ক, বাংলাদেশ আদিবাসী যুব ফোরাম, বাংলাদেশ আদিবাসী ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ ও পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ এর নেতৃবৃন্দ আজ এই বিশিষ্টজনকে ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন।

ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদনের সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের তথ্য ও প্রচার সম্পাদক দীপায়ন খীসা, জনসংহতি সমিতির কেন্দ্রীয় স্টাফ সদস্য অনন্ত বিকাশ ধামাই, পাহাড়ী ছাত্র পরিষদের ঢাকা মহানগর শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যবিলন চাকমা, বাংলাদেশ আদিবাসী যুব ফোরামের সদস্য সচিব আন্তনী রেমা, একই সংগঠনের আহ্বায়ক সদস্য টনি চিরান, অপর এক সদস্য মিঠুন কোচ, বাংলাদেশ আদিবাসী নারী নেটওয়ার্কের সদস্য সচিব চঞ্চনা চাকমা ও সংগঠনটির সমন্বয়ক ফাল্গুনী ত্রিপুরা, কাপেং ফাউন্ডেশনের প্রতিনিধি অন্বেষা চাকমা ও অর্জন চাকমা, বাংলাদেশ আদিবাসী ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের সাধারন সম্পাদক অলীক মৃ, সংগঠনটির সাংগঠনিক সম্পাদক বাদল হাজং সহ উক্ত সংগঠনগুলোর নেতৃবৃন্দ।

এদিকে বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের সাধারন সম্পাদক সঞ্জীব দ্রং এক শোক বার্তায় গভীর শোক জানিয়ে বলেন, তিনি (সৈয়দ আবুল মকসুদ) আদিবাসীসহ সকল প্রান্তিক মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে সক্রিয় ছিলেন। তাঁর মৃত্যুতে দেশ ও সমাজ একজন প্রগতিশীল ও অসাম্প্রদায়িক চেতনার বলিষ্ট ব্যক্তিত্বকে হারালো।

উল্লেখ্য সৈয়দ আবুল মকসুদ গতকাল (২৩ ফেব্রুয়ারী) সন্ধ্যা ৭.৩০ ঘটিকায় মারা যান। তাঁর কর্মজীবন শুরু হয় ১৯৬৪ সালে এম আনিসুজ্জামান সম্পাদিত সাপ্তাহিক নবযুগ পত্রিকায় সাংবাদিকতার মাধ্যমে। পরে সাপ্তাহিক ‘জনতা’য় কাজ করেন কিছুদিন। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ বার্তা সংস্থায় যোগ দেন। ২০০৮ সালের ২ মার্চ বার্তা সংস্থার চাকরি ছেড়ে দেন। তিনি দৈনিক প্রথম আলোতে ‘সহজিয়া কড়চা’ এবং ‘বাঘা তেঁতুল’ শিরোনামে আদিবাসীদের অধিকার, সমাজ, রাজনীতি ও সাহিত্য-সংস্কৃতি নিয়ে নিয়মিত কলাম লেখেন। আদিবাসী অধিকার আদায়ের মিছিল, মিটিং, সভা, সমাবেশ, সেমিনার সহ বিভিন্ন আয়োজনে তাঁর ছিল সরব উপস্থিতি।

সৈয়দ আবুল মকসুদ বাংলাাদেশের আদিবাসীদের করুণ দশা, রাজনীতি, সমাজ, সাহিত্য ও সংস্কৃতি নিয়ে নানা বই ও প্রবন্ধ লিখেছেন। এছাড়া তিনি উপমহাদেশের বহু প্রখ্যাত সাহিত্যিক ও রাজনীতিবিদদের জীবন ও কর্ম নিয়েও গবেষণা করেছেন। বাংলা সাহিত্যে সামগ্রিক অবদানের জন্য তিনি ১৯৯৫ সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার লাভ করেন।

বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *