আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা পদক পাচ্ছেন মথুরা বিকাশ ত্রিপুরা

দেশের আদিবাসীদের মাতৃভাষায় শিক্ষার চিত্র, মাতৃভাষায় শিক্ষা পরিস্থিতি, মাতৃভাষা ভিত্তিক বহুভাষিক শিক্ষাসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে গবেষণায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখায় ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা পদক ২০২১’ পাচ্ছেন খাগড়াছড়ি জাবারং কল্যাণ সমিতির নির্বাহী পরিচালক মথুরা বিকাশ ত্রিপুরা। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইন্সটিটিউটের পরিচালক (ভাষা, গবেষণা ও পরিকল্পনা) মো. শাফীউল মুজ নবীন গত বৃহস্পতিবার গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানান।
তিনি বলেন, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে মাতৃভাষার সংরক্ষণ, পুনরুজ্জীবন ও বিকাশে অবদানের জন্য ২০২১ সালে তিনজন এ পুরস্কার পাচ্ছেন। এরা হলেন, জাতীয় অধ্যাপক মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম, খাগড়াছড়ি জাবারং কল্যাণ সমিতির মথুরা বিকাশ ত্রিপুরা ও উজবেকিস্তানের গবেষক ইসমাইলভ গুলম মিরজায়েভিচ।

প্রথম আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা পদকের জন্য মনোনীত মথুরা বিকাশ ত্রিপুরা বাংলাদেশের বিভিন্ন আদিবাসী ভাষা সংরক্ষণ, পুনরুজ্জীবন, বিকাশ ও এসব ভাষায় শিক্ষা কার্যক্রম প্রণয়নে কাজ করেছেন।দেশের আদিবাসীদের মাতৃভাষায় শিক্ষার চিত্র, মাতৃভাষায় শিক্ষা পরিস্থিতি, মাতৃভাষাভিত্তিক বহুভাষিক শিক্ষাসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে গবেষণায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন তিনি।

পদক প্রাপ্তি নিয়ে নিজের ভালো লাগার কথা জানিয়ে মথুরা বিকাশ আইপিনিউজকে জানান,এটা সকল আদিবাসীদের জন্য গৌরবের।বাংলাদেশের একজন আদিবাসী লেখক ও ভাষা সংগঠককে এই পদকের জন্য প্রথমবারেই মনোনীত করে স্বীকৃতি দেওয়া হচ্ছে। এটা একটা বড় ধরণের প্রাপ্তি এবং এর জন্য সরকারকে ধন্যবাদ জানায়।

আইপিনিউজকে তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশে অনেক আদিবাসী ভাষা রয়েছে যেগুলোর লিখিত রূপ নেই। এছাড়া সেসব ভাষার সাহিত্য চর্চা এবং ব্যবহারও কম। যার কারণে এসব ভাষাগুলো বিলীন হওয়ার পথে। এরকম ভাষাগুলোর সংরক্ষণ, উন্নয়ন ও বিকাশে স্ব স্ব আদিবাসী এবং সরকারকে কর্মপরিকল্পনা নিয়ে যৌথ উদ্যোগে এগিয়ে আসতে হবে।

প্রথমবারের মত এই পদক পাওয়াদের একজন নজরুল গবেষক অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের প্রথম নজরুল অধ্যাপক এবং নজরুল গবেষণা কেন্দ্রের প্রথম পরিচালক। ৮৭ বছর বয়সী এই ভাষাবিজ্ঞানী, লেখক ভাষা আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেছেন। সেই সময়ের দুর্লভ আলোকচিত্রও ধারণ করেছেন তিনি। বাঙালির মুক্তির সংগ্রামের এই প্রত্যক্ষ সাক্ষী সেইসব ইতিহাস গ্রন্থিত করেছেন তার লেখায়। শহীদ বুদ্ধিজীবীদের নিয়ে প্রথম গ্রন্থ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষের ইতিহাসের প্রথম গ্রন্থটিসহ প্রায় ৩০টি বই তার হাত দিয়ে এসেছে। এছাড়া আন্তর্জাতিক পর্যায়ে উজবেকিস্তানের গবেষক ইসমাইলভ গুলম মিরজায়েভিচ এবং লাতিন আমেরিকার আদি ভাষাগুলো নিয়ে কাজ করা বলিভিয়ার অনলাইন উদ্যোগ অ্যাক্টিভিজমো লেংকুয়াস এ বছর বাংলাদেশ সরকারের এ সম্মাননা পাচ্ছে।
শাফীউল মুজ নবীন বলেন, ‘সরকার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা পদক দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়ার পর এ বছরই প্রথম এ সম্মাননা দেয়া হচ্ছে। দুই বছর পর পর জাতীয় পর্যায়ে দুটি এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ে দুটি পদক দেয়া হবে।’

মুজিববর্ষে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে চার দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করা হয়েছে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট।
এর অংশ হিসেবে ২১ ফেব্রুয়ারি বিকালে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা পদক দেবেন বলে জানান মাতৃভাষা ইন্সটিটিউটের পরিচালক।

বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *