ঘুরে দাঁড়াব আবার, সবার জন্য মানবাধিকার- সঞ্জীব দ্রং

মানবাধিকার দিবস
ঘুরে দাঁড়াব আবার, সবার জন্য মানবাধিকার

আজ মানবাধিকার দিবসে সকলকে সংগ্রামী শুভেচ্ছা জানাই। আমরা কঠিন এক করোনাকাল অতিক্রম করছি। এই করোনাকালে জাতিসংঘ মানবাধিকার সমুন্নত রাখা এবং পুনরুদ্ধারের আহ্বান জানিয়েছে। জাতিসংঘ প্রত্যেক ব্যক্তির মানবাধিকার সমর্থন, এর বিকাশ সাধন ও সংরক্ষণে অঙ্গীকারাবদ্ধ। এ বছর মানবাধিকার দিবসের মূলসুর হলো, Recover better, stand up for human rights. আসুন আমরা আবার ঘুরে দাঁড়াই, সকলের জন্য সর্বত্র মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় কাজ করি।

এই কোভিড ১৯ মহামারিতে সবচেয়ে বেশি সংকটে পড়েছে সমাজের পিছিয়ে মানুষ যারা ঐতিহাসিক বৈষম্য, বঞ্চনা ও অবিচারের শিকার। তাদের মধ্যে প্রান্তিক আদিবাসী পাহাড়ি, গ্রামীন অতি দরিদ্র খেটে খাওয়া মানুষ, হঠাৎ চাকুরি হারানো মানুষ, দলিত, চা জনগোষ্ঠী, অপ্রাতিষ্ঠানিক কর্মজীবি, হাওর ও চরাঞ্চলের মানুষ, নারী ও শিশু, প্রতিবন্ধী ও অন্যান্য অনগ্রসর জনগোষ্ঠী রয়েছেন। সমাজের মধ্যে সবচেয়ে অবহেলা, উপেক্ষা আর বঞ্চনার কারণে যারা পিছিয়ে রয়েছে, যারা এই করোনার কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত, তাদের দিকে সবার আগে বিশেষ দৃষ্টি দিতে হবে। কোভিড পরবর্তী সময়ে এই মানুষদের প্রয়োজনের প্রতি সাড়া দেওয়া, প্রণোদনা ও ওদের পুনরুদ্ধার হতে হবে সকল কর্মের কেন্দ্রে। মানবাধিকারের মূল কেন্দ্রে যেন এই মানুষদের অধিকারকে অগ্রাধিকার দেয়া হয়।

এখন সময় এসেছে করোনার সময়ের সকল ভুল ও ভ্রান্তি থেকে শিক্ষা নিয়ে মানবাধিকারের মানদন্ড সমুন্নত রাখার এবং বছরের পর বছর ধরে চলে আসা অসমতা, অবিচার, বৈষম্য ও এক্সক্লুসন দূর করার। বিশ্ব মানবাধিকার দিবস তাই মানব সমাজের জন্য এই কঠিন করোনাকালে আরো বেশি সংহতি, পারষ্পরিক যুক্ততা ও সহযোগিতা বৃদ্ধির বার্তা দেয়।

সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট গোল বা এসডিজির মূলেই রয়েছে মানবাধিকার। মানব মর্যাদা প্রতিষ্ঠা ছাড়া এসডিজি লক্ষ্য অর্জন সম্ভব নয়। আমাদের এই একটি মাত্র পৃথিবী ও জনগণের জন্য স্থায়ীত্বশীল উন্নয়ন ব্যবস্থা দরকার। এসডিজির মূলমন্ত্র ‘কাউকে পিছলে ফেলে রাখা নয়’ কথাটি সবার মনে রাখতে হবে। কোভিড ১৯ সংকট মানুষের দারিদ্র ও অর্থনৈতিক সংকট বাড়িয়ে দিয়েছে। তাই সমাজে সকল মানুষের অংশগ্রহণ ও সংহতি জোরদার করতে হবে। মানুষ একে অপরের সঙ্গে যুক্ত, সম্পর্কিত।

আমাদের দেশে মানবাধিকার পরিস্থিতি উন্নয়নের জন্য আরো অনেক কাজ করতে হবে। রাষ্ট্রকে বিশেষ করে জাতিগত ও ধর্মীয় সংখ্যালঘুসহ সকল প্রান্তিক মানুষের মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় আরো গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। মনে রাখতে হবে, মানবাধিকার লংঘন সীমা ছাড়িয়ে গেলে এই চলমান বিশাল অর্থনৈতিক উন্নয়ন কোনো অর্থ বহন করবে না। মানবাধিকার বিহীন উন্নয়ন টেকসইও হবে না।

আসুন আমরা আবার ঘুরে দাঁড়াই। সবার জন্য, সবখানে মানবাধিকার সমুন্নত রাখি।

সঞ্জীব দ্রং
সাধারণ সম্পাদক
বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরাম
১০ ডিসেম্বর ২০২০

বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *