বান্দরবানে অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন ও শেরপুরে বালু উত্তোলন বন্ধের দাবি

সোহেল হাজংঃ হাইকোর্টের নির্দেশনা অমান্য করে বান্দরবানে অবৈধভাবে পাথর উত্তোলনের প্রতিবাদে এবং শেরপুরে অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধের দাবিতে ৩১ মে ২০১৯ সকাল ১১টায় ঢাকার শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে মানববন্ধন আয়োজন করেছে বাংলাদেশ আদিবাসী ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ, বাংলাদেশ আদিবাসী নারী নেটওয়ার্ক এবং কাপেং ফাউন্ডেশন নামে একটি মানবাধিকার সংগঠন।

মানববন্ধনে বলা হয়, গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ মহামান্য হাইকোর্ট বান্দরবানের সাঙ্গু ও মাতামুহুরী নদী ও পার্শ্ববর্তী সংরক্ষিত ঝরনা, ঝিরি ও ছড়া থেকে পাথর উত্তোলন বন্ধে একটি নির্দেশনা দেয়া সত্ত্বেও তা অমান্য করে পার্বত্য বান্দরবান জেলার লামা, আলীকদম, থানচি ও রোয়াংছড়ি-সহ প্রায় ৭টি উপজেলার সাঙ্গু, মাতামুহুরী নদী ও নদীর পার্শ্ববর্তী ঝর্ণা, ছড়া, খাল, ঝিরি থেকে নির্বিচারে ক্ষমতাসীন প্রভাবশালী ও অসাধু ব্যবসায়ীরা অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন করে চলেছে। এসব অঞ্চলে পাথর উত্তোলনের ফলে প্রায় ৪০০ঝিরি ও ঝর্ণা নষ্ট হয়ে গেছে। সেখানকার নদীগুলোও আজ পানিশূন্য। এইসব ঝিরি ও ঝর্ণাই হলো স্থানীয় আদিবাসীদের খাবার পানির একমাত্র উৎস। কিন্তু অবৈধভাবে পাথর উত্তোলনে এই ঝিরি বা ঝর্ণাগুলো শুকিয়ে যাওয়ার ফলে বান্দরবানের স্থানীয় আদিবাসীদের জীবন ব্যবস্থা, পরিবেশ ভারসাম্য ও জীব-বৈচিত্র্য হুমকির সম্মুখিন হয়ে পড়েছে। পানির অভাবে স্থানীয় আদিবাসীদের বেঁচে থাকা কষ্টকর হয়ে পড়েছে। মানবন্ধনে বক্তারা দাবি জানান, অবিলম্বে যেন বান্দরবান পার্বত্য এলাকার নদী, ঝর্ণা, ছড়া, ঝিরি থেকে অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন বন্ধ করা হয় এবং সেইসাথে শেরপুর জেলার শ্রীবরদী ও নালিতাবাড়ির নদী ও ডোবা থেকে অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধ করার দাবি জানান।

আদিবাসী ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অলিক মৃ-এর সঞ্চালনায় মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন কাপেং ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক পল্লব চাকমা। পল্লব চাকমা বলেন, ‘পার্বত্য চট্টগ্রামে স্থানীয় কর্তৃপক্ষের কোন অভাব নেই। তবুও হাইকোর্টের রায় অমান্য করে সেখানে নির্বিচারে পাথর উত্তোলন করা হচ্ছে কিন্তু প্রশাসন কিছু করতে পারছে না। বান্দরবানের পাহাড়ি এলাকায় ৪/৫ কিলোমিটার পথ পায়ে হেঁটে দূরবর্তী ঝিরি থেকে আদিবাসীদের খাবার পানি সংগ্রহ করতে হয়, এখন সেই ঝিরি শুকিয়ে যাচ্ছে তাহলে তারা যাবে কোথায়?’ তিনি অচিরেই এ পাথর উত্তোলন বন্ধ করার জোরালো পদক্ষেপ গ্রহণ করার দাবি জানান।

পাথর উত্তোলন বন্ধে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা একজন স্থানীয় আদিবাসী ও ৬টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে এ মানববন্ধনে উপস্থিত ছিল কাপেং ফাউন্ডেশন, বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরাম ও অ্যাসোসিয়েশন ফর ল্যান্ড রিফর্ম অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (এএলআরডি)-এর প্রতিনিধিবৃন্দ। এএলআরডি-এর পক্ষ থেকে রিট দায়ের করা আইনজীবী অ্যাড. রফিক আহমেদ সিরাজী বলেন, ‘সরেজমিনে গিয়ে দেখেছি কতটা ভয়াবহভাবে বান্দরবানের এসব ঝিরি ও ঝর্ণা থেকে পাথর উত্তোলন করে স্তুপ করে রাখা হয়েছে! আমরা এ অবৈধ পাথর উত্তোলন বন্ধে হাইকোর্টে রিট দায়ের করেছি এবং পাথর উত্তোলন বন্ধে হাইকোর্টের নির্দেশনাও পেয়েছি। কিন্তু এই উচ্চ আদালতের নির্দেশনাতেও যদি সেখানে পাথর উত্তোলন বন্ধ না করা যায়, তাহলে এর পরবর্তী ব্যবস্থা যা নিতে হয় আমরা সেদিকেই যাব।’

বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি মানবেন্দ্র দেব বলেন, ‘পাথর উত্তোলনে ও ভূমি ধসে শুধু আদিবাসীরা নয়, বাঙালীরাও ক্ষতিগ্রস্ত হয় তাই সকলকে পরিবেশ রক্ষায়, এ অবৈধ পাথর উত্তোলন বন্ধে সোচ্চার হতে হবে।’ তিনি বলেন, ‘কারা অবৈধভাবে পাহাড় থেকে পাথর উত্তোলন করছে এবং প্রশাসনের সাথে তাদের সংযোগ কোথায়? পাথর উত্তোলন বন্ধে কেন হাই কোর্টের নির্দেশ মানা হয় না, প্রশাসনের কাছে জবাব চাইলেই তার অর্থ খুঁজে পাওয়া যাবে।’

জনউদ্যোগের কেন্দ্রীয় সদস্য মাহবুল হক বলেন, বান্দরবানে অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন ও শেরপুরে বালু উত্তোলন করে দেশের সংবিধান ও মানবাধিকার লঙ্ঘণ করা হয়েছে। পাহাড় ও পরিবেশ আদিবাসীদের জীবন। এ জীবনের ওপর হামলা করা হচ্ছে। এখনই প্রশাসনকে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে। বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের সাংস্কৃতিক সম্পাদক হিরন মিত্র চাকমা বলেন, ‘পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি করা হয়েছে কিন্তু চুক্তির পূর্ণ বাস্তবায়ন নেই। চুক্তি অনুযায়ী পার্বত্য চট্টগ্রাম ভূমি নিষ্পত্তি কমিশন গঠন করা হলো কিন্তু তারও কার্যকারিতা নেই ঠিক তেমনিভাবে বান্দরবানে অবৈধ পাথর উত্তোলন বন্ধে হাইকোর্টের রায় হয়েছে কিন্তু সে রায়ের বাস্তবায়ন হচ্ছে না। তার মানে এদেশে অধিকার প্রতিষ্ঠায় আইনী বাধ্যবাধকতা থাকলেও প্রশাসন তার দায়িত্ব ঠিকভাবে পালন করছে না।’

আদিবাসী ফোরামের কেন্দ্রীয় সদস্য সোহেল হাজং বলেন, ‘সরকার টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট ২০৩০ পূরণে নানা পদক্ষেপ হাতে নিয়েছে। কিন্তু মানুষের দ্বারা পাথর ও বালু উত্তোলনের ফলে যে পরিবেশ ধ্বংস করা হচ্ছে তাহলে কিভাবে রাষ্ট্র টেকসই উন্নয়নের অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারবে।’ তিনি বলেন, পাহাড়ে পাথর উত্তোলনের ফলে শুধু আদিবাসীদের ক্ষতি হচ্ছে না এটা পুরো দেশ ও পরিবেশের ক্ষতি হচ্ছে। তিনি অবিলম্বে পাথর ও বালু উত্তোলন বন্ধ করার জন্য জোরালো পদক্ষেপ নিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

মানববন্ধনে এছাড়াও সংহতি বক্তব্য প্রদান করেন বাংলাদেশ আদিবাসী নারী নেটওয়ার্কের সমন্বয়কারী ফাল্গুনী ত্রিপুরা, আদিবাসী যুব পরিষদের সভাপতি হরেন্দ্রনাথ সিং-সহ বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের প্রতিনিধি, আশীষ হাজং, লিয়াং রিছিল, চন্দন কোচ, বেবিলন চাকমা, কাজল হাউই, বাদল হাজং, কাঞ্চন ¤্রং, সতীর্থ প্রমুখ। মানববন্ধনের শুরুতে আদিবাসী ছাত্র সংগঠনের প্রতিনিধি খাস্রী রুখো মানববন্ধনের মূল বক্তব্য পাঠ করে শোনান। তিনি বক্তব্যে আয়োজকদের পক্ষ থেকে ছয়টি দাবি তোলে ধরেন, দাবিগুলো হলো-(১) অবিলম্বে বান্দরবান পার্বত্য এলাকার বিভিন্ন নদী, ঝর্ণা, ছড়া, ঝিরি থেকে অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন বন্ধ করতে হবে; (২) বান্দরবানে অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন বন্ধে মহামান্য হাইকোর্টের রায় যথাযথভাবে বাস্তবায়ন করতে হবে এবং প্রশাসনকে এ রায় বাস্তবায়নে অবিলম্বে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে; (৩) সমতলের শেরপুরের শ্রীবর্দী ও অন্যান্য অঞ্চলের নদী ও ডোবা থেকে অবৈধ বালু উত্তোলন কার্যক্রম বন্ধ করতে হবে; (৪) অবৈধভাবে পাথর ও বালু উত্তোলনের সাথে জড়িত সকল প্রভাবশালী ও ব্যবসায়ী চক্রকে আইনের আওতায় এনে যথাযথ শাস্তি প্রদান করতে হবে; (৫) আদিবাসী জাতিগোষ্ঠীর পরিবেশ এবং তাদের ভূমি/ভূখন্ড ও প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণ ও রক্ষা করার অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে; এবং (৬)দেশের বন, পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য রক্ষায় রাষ্ট্র বা প্রশাসনকে আরো মনোযোগী ও তৎপর হতে হবে।

বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *