সোশ্যাল মিডিয়া আইপিনিউজ-

কেএনএফ আতঙ্কে ঘর ছাড়া রাঙামাটি ও বান্দরবানের শতাধিক পরিবার

প্রাণনাশের হুমকিতে নিজ বসতি থেকে পালিয়েছে রাঙ্গামাটি ও বান্দরবানের জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলের বেশ কয়েকটি গ্রামের প্রায় শতাধিক পরিবার। বিভিন্ন সূত্রের মাধ্যমে জানা গেছে যে, কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট (কে এনএফ) গ্রামবাসীদের এ হুমকি দিয়েছে। পালিয়ে আসা এসব পরিবারের সদস্যরা রাঙামাটি ও বান্দরবানের বিভিন্ন জায়গায় আশ্রয় নিয়েছেন। গত তিন-চারদিনের ব্যবধানে এসব পালিয়ে আসার ঘটনাগুলাে ঘটেছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা।

একাধিক সূত্রে জানা গেছে যে, রাঙ্গামাটির বিলাইছড়ি উপজেলার বড়থলি ইউনিয়নের সাইজাম পাড়ার ২২টি পরিবার, বিলছড়ি পাড়ার ২৪টি পরিবার, কাইছড়া পাড়ার ১১টি পরিবার, রেকহিড়া পাড়ার ৩৭টি পরিবার ও বান্দরবানের রোয়াংছড়ি উপজেলার আলেক্ষ্যং ইউনিয়নের প্রভাতচন্দ্র পাড়ার ২টি পরিবার তাদের নিজ বসতি থেকে পালিয়েছে।

গত ২১ জুন কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) সন্ত্রাসীরা রাঙ্গামাটির বিলাইছড়ি উপজেলার বড়থলি ইউনিয়নের সাইজামপাড়া গ্রামে এলোপাতাড়ি গুলি চালিয়ে ৩ জনকে হত্যা করে এবং এতে ২ শিশুসহ অনেকেই গুরুতর আহত হন। এরপর থেকেই এ এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে। বড়থলি ও আলেক্ষ্যং ইউনিয়নের দুর্গম এলাকার গ্রামবাসীদের এলাকা ছেড়ে চলে যেতে হুমকি দিয়ে আসছিল কেএনএফ। এ হুমকির ফলে ভীতসন্ত্রস্ত গ্রামবাসীরা পালিয়ে যেতে বাধ্য হচ্ছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে আইপিনিউজকে এক স্থানীয় জনপ্রতিনিধি বলেন, সাইজামপাড়ায় হত্যাকাণ্ডের পর ২নং ওয়ার্ডের চারটি পাড়ার প্রায় শতাধিকপরিবার গ্রাম ছেড়ে পালিয়েছে। দুর্গম এলাকা হওয়ায় প্রশাসনের লোকজন ঘটনাস্থলে যাননি। এতে জনমনে ভীতি ছড়িয়ে পড়েছে।

আলেক্ষ্যং ইউনিয়ন চেয়রম্যান বিশ্বনাথ তঞ্চগ্যা বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, সন্ত্রাসীদের হুমকির কারণে পাংপুরি পাড়ার লোকজন পাড়া ছেড়ে চলে গেছে বলে শুনেছি। তবে পাড়া ছেড়ে চলে আসাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। তারা যোগাযোগ করলে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করব।

রোয়াংছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল মান্নান জানিয়েছেন, কিছু পরিবার রোয়াংছড়িতে চলে আসার কথা শুনেছি তবে তারা কেউ পুলিশের কাছে অভিযোগ করেনি।

এদিকে দুর্গম এলাকা হওয়ায় ঘটনাস্থলে যেতে গত ২৪ জুন থেকে রাঙ্গামাটির পুলিশ বান্দরবানের রুমা থানায় অবস্থান করছে বলে জানিয়েছেন রাঙ্গামাটির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মামুদা বেগম।

শেয়ার করুন

সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত

Leave a Comment

Your email address will not be published.

আইপিনিউজের সকল তথ্য পেতে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও পড়ুন