জাতীয়

৪ নভেম্বর মধুপুরে অনুষ্ঠিত হচ্ছে ওয়ানগালা উৎসব

সুমেধ চাকমা:  “ঐতিহ্য ও উচ্ছ্বাসে ঢেউ উঠুক নবজাগরণে” এই মূলসুরে আগামী ৪ নভেম্বর (শুক্রবার) সারাদিন  টাঙ্গাইলের মধুপুর উপজেলার জলছত্রের আমলীতলা গ্রামে গারোদের ঐতিহ্যবাহী প্রধান উৎসব ‘ওয়ানগালা’ অনুষ্ঠিত হবে। হেমন্তের নতুন ফসল ঘরে তোলার উৎসব ওয়ানগালা। সারাদিন ব্যাপী গারোদের নিজস্ব ধর্ম সাংসারেক রীতিতে  ওয়ানগালা আয়োজিত হবে সংসারেক কমিউনিটি বাংলাদেশ এর উদ্যোগে। সহ আয়োজক হিসেবে থাকছে  আমলীতলা গ্রামবাসী ও  জয়েনশাহী আদিবাসী উন্নয়ন পরিষদ।

এ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন কমিউনিটি বাংলাদেশের সভাপতি ওয়ারি নকরেক মারাক। সারাদিন ব্যাপী ওয়ানগালায় ফসল উৎসব, গোরেরোয়ে, কামাল গ্রিকা ও অতিথিদের মনোমুগ্ধকর পরিবেশনা থাকবে।

বিজ্ঞাপণ

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে থাকবে সবুজ মাঝি, যাদু রিছিল, ঢাকা কালচারাল গ্রুপ। স্পেশাল কনসার্টে গান গাইবে  বাংলাদেশের রেরে, সাক্রামেন্ট, জুমাঙ, মাদল, হিবক্লাউ, জাগরিং এবং রেড ত্বালাইট ব্যান্ড কনসার্টে গারো গান করবে। এছাড়াও দিন ব্যাপী হেলথ ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হবে। কনসার্টের  অন্যতম আকর্ষণ হিসেবে গান করবে ভারতের মেঘালয় রাজ্যের জনপ্রিয় গারো ব্যান্ড দা সুরাকা।

এবারের মধুপুর উপজেলার  আমলীতলা গ্রামের আবিমা  ওয়ানগালায় মিডিয়া পার্টনার হিসেবে থাকছে আইপিনিউজ।

উল্লেখ্য যে, ওয়ানগালা’ ধন্যবাদ বা কৃতজ্ঞতা প্রকাশের উৎসব। আদিবাসী গারোদের বিশ্বাস, শস্যদেবতা ‘মিশি সালজং’ পৃথিবীতে প্রথম ফসল দিয়েছিলেন এবং তিনি সারা বছর পরিমাণমতো আলো-বাতাস, রোদ-বৃষ্টি দিয়ে ভাল শস্য ফলাতে সহায়তা করেন। তাই নবান্নের নতুন ফসল ঘরে তোলার সময় ‘মিসি  সালজং’কে ধন্যবাদ জানাতে উৎসবের আয়োজন করে গারোরা। ফসল দেবতাকে উৎসর্গ না করে তারা কোন খাদ্য ভোগ করে না। ‘ওয়ানগালা’ আদিবাসী মান্দি বা গারোদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব। যুগ যুগ ধরে গারোরা তাদের শস্যদেবতাকে এই ফসল উৎসর্গ করে আসছে।

বিজ্ঞাপণ

খ্রীস্টধর্মে দীক্ষিত হওয়ার পর গারোদের ঐতিহ্যবাহী সামাজিক প্রথাটি এখন ধর্মীয় ও সামাজিকভাবে একত্রে পালন করা হয়। অর্থাৎ এক সময় তারা তাদের শস্যদেবতা মিশি সালজংকে উৎসর্গ করে ওয়ানগালা পালন করলেও এখন তারা নতুন ফসল কেটে যিশুখ্রিস্ট বা ঈশ্বরকে উৎসর্গ করে ওয়ানগালা পালন করেন। এ সময় সামাজিক নানা আয়োজনসহ ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠানাদিও পালন করা হয়।

তবে আবিমা ওয়ানগালার আয়োজকরা জানান, ওয়ানগালা উৎসবকে আমরা আদি ধর্ম সাংসারেক রীতিতেই পালন করবো। ওয়ানগালা উৎসবের সকল ধর্মীয় রীতি মেনেই এই আয়োজন করা হয়েছে। আগামী ৪ নভেম্বর সকালে দেবতাদের পূজার মাধ্যমে শুরু হবে ‘ওয়ানগালা উৎসব’ এর এই আয়োজন। নতুন প্রজন্মের কাছে ওয়ানগালা উৎসবের ভুল মেসেজ যাচ্ছে, আমরা আশা করি সাংসারেক রীতিতে ওয়ানগালা আয়োজনের মাধ্যমে ওয়ানগালা উৎসবের সাথে গারোদের আদি বিশ্বাস ও মূল্যবোধ সম্পর্কে নতুন প্রজন্ম জানতে পারবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please Disable Your Ad Blocker.