অন্যান্য

বাংলাদেশ জাসদের গণজাগরণ দিবস পালন

দেশের বিদ্যমান লুটপাট, সম্পদ পাচার, নারী নির্যাতন, বেপরোয়া হত্যাকান্ড, উন্মত্ত গণপিটুনী প্রতিরোধে ও জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশ জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল – বাংলাদেশ জাসদ এর আয়োজনে গত ২৪ আগস্ট ২০১৯ শনিবার সারাদেশে মানববন্ধন, জমায়েত, আলোচনা সভার মাধ্যমে গণজাগরন দিবস পালন করে। কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে গত ২৪ আগস্ট সকাল ১১.৩০টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানব বন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানব বন্ধন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ জাসদের সভাপতি জনাব শরীফ নুরুল আম্বিয়া। আলোচনায় অংশ নেন বাংলাদেশ জাসদ সাধারণ সম্পাদক জনাব নাজমুল হক প্রধান, বাংলাদেশ জাসদ স্থায়ী কমিটির সদস্য ডা. মুশতাক হোসেন, মোহাম্মদ খালেদ, বাংলাদেশ জাসদ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সর্বজনাব করিম সিকদার, মনজুর আহমেদ মনজু, নাসিরুল হক নওয়াব, জাতীয় কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুল ইসলাম বাবু, বাংলাদেশ জাসদ সাংগঠনিক সম্পাদক হোসাইন আহমেদ তফছির, বাংলাদেশ জাসদ ঢাকা মহানগর দক্ষিণ সভাপতি আবদুস সালাম খোকন, ঢাকা মহানগর পূর্ব সভাপতি আসাদুজ্জামান জাকির, ঢাকা মহানগর উত্তর সভাপতি আলমগির হোসেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ-বিসিএল সাধারণ সম্পাদক গৌতম শীল ও অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

মানববন্ধনে বক্তব্য দেয়ার আগে যুদ্ধকালীন সরকারের উপদেষ্টা বাংলাদেশ ন্যশনাল আওয়ামী পার্টি-ন্যাপ সভাপতি অধ্যাপক মোজাফফর আহমেদ স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

বিজ্ঞাপণ

সভাপতির বক্তৃতায় জনাব শরীফ নুরুল আম্বিয়া বলেন, “দেশে উন্নয়নের আড়ালে এক লুটেরা চক্র গড়ে উঠেছে। এই লুটেরা চক্র অনেক কিছু নিয়ন্ত্রন করছে। দুদক বড়দের কাছে যেতে পারছে না, ছোটদের নিয়ে টানাটানি করছে। আবার সরল বিশ^াসের দূর্নীতির প্রতি দুদক নমনীয় হয়ে পড়েছে।

এখন দরকার উন্নয়নের সঙ্গে জনগণের অধিকার ও গণতন্ত্র শক্তিশালী করা। একাদশ সংসদ নির্বাচন মানুষের নৈতিকতার ধ্বস নামিয়ে দিয়েছে। এইজন্য দূর্নীতি, ধর্ষণ, সন্ত্রাস প্রভৃতির প্রবৃদ্ধি হয়েছে। নির্বাচিত নেতৃত্ব, মন্ত্রী, মেয়রদের আচার আচরণে দায়িত্বশীলতা প্রতিফলিত হয় না। ধানের দাম, চামড়ার দাম, ডেঙ্গু জ¦র নিয়ন্ত্রণে সেসব স্পষ্ট হয়েছে।”

বাংলাদেশ জাসদ সাধারণ সম্পাদক জনাব নাজমুল হক প্রধান বলেন, “আগে বিদ্যুত উৎপাদন কম হত। এখন চাহিদার চাইতে অনেক বেশী হচ্ছে ঠিকই কিন্তু তা মানুষের কাছে পৌছে দেয়ার জন্য বিনিয়োগ নাই। কত দামে মানুষকে বিদ্যুত দিতে চায় সরকার তা জনগণকে জানানো উচিত।

বিজ্ঞাপণ

উচ্চ আদালতে দূর্নীতি লাঘবে যে পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে আমরা তাকে স্বাগত জানাই। গণতন্ত্রকে বিসর্জন দিয়ে জনকল্যাণমুখী উন্নয়ন হতে পারে না। আমাদের জেগে উঠতে হবে। সত্য কথা বলতে পিছ পা হলে চলবে না।

বিএনপির জঙ্গি সন্ত্রাসী রাজনীতি ব্যর্থ হয়েছে, নতুন কিছু এখনো বলে নাই। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সংহত করা ও জনগণের কল্যাণমুখী গণতান্ত্রিক সমাজ গড়ে তুলতে সংশ্লিষ্ট সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান।”

Back to top button