জাতীয়

আজ অমর একুশে : আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস

ভাষার অধিকার আদায়ের সেই লড়াইয়ে ঘাতকের গুলিতে ঝরে পড়েছিলেন যারা,আজ তাদের স্মরণের দিন। আজ অমর একুশে, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস।

১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি বাংলা ভাষাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে সালাম, বরকত, রফিক, জব্বার ও শফিউরসহ নাম না-জানা শহীদ ঢাকার রাজপথে বুকের রক্ত ঢেলে দিয়ে রচনা করেছিলেন স্বাধীন বাংলাদেশের ভিত্তি। তাদের আত্মদানের স্মৃতিকে মনে রেখে দেশে উদযাপিত হয়ে আসছে মাসজুড়ে অমর একুশে।

বিজ্ঞাপণ

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করা হয়েছে ভাষা শহীদদের। একুশের প্রথম প্রহরের রাত ১২টা ১ মিনিটে প্রথমে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এরপর নীরবে দাঁড়িয়ে ভাষা আন্দোলনের শহীদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানান।

এসময় উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা, সংসদ সদস্য, তিন বাহিনীর প্রধান, কূটনীতিক, আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতা এবং রাষ্ট্রের উচ্চপদের বেসামরিক ও সামরিক কর্মকর্তারা।

এরপর জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী। আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকেনেতাকর্মীদের সঙ্গে দলটির সভাপতি শেখ হাসিনা, জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া, ডিএসসিসি মেয়র, সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা জিএম কাদের, তিন বাহিনীর প্রধান ও পুলিশের প্রধান শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

বিজ্ঞাপণ

তারপর ধারাবাহিকভাবে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, বাহিনী, সংস্থা, ফোরাম ও সংগঠনের প্রধানরা।

র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ জানান, শহীদ মিনার এলাকা নিরাপদ রাখতে সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

এর আগে একুশে ফেব্রুয়ারি উদযাপনে নিরাপত্তা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে এসে ডিএমপি কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন,‘শহীদ মিনারের প্রবেশ পথে থাকবে আর্চওয়ে। আগতদের প্রত্যেককে মেটাল ডিটেক্টরের মাধ্যমে তল্লাশি চৌকি পেরিয়ে ভেতরে প্রবেশ করতে হবে। যেকোনও পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রস্তুত থাকবে ডিবি, সোয়াট, বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট ও ক্রাইম সিন ভ্যান। পুরো এলাকা ডগ স্কোয়াডের মাধ্যমে সুইপিং করা হবে।’

Back to top button